জঙ্গিদের নেত্রী খালেদাকে তিরস্কার করুন: ইনু

bp610
সমাজের কথা ডেস্ক॥
তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া জঙ্গিদের পৃষ্ঠপোষকতা করছেন। তিনি জঙ্গিদের নেত্রী। দারিদ্র্য বিমোচন করে দেশের সামগ্রিক উন্নয়ন করতে হলে আসুন সবাই একসঙ্গে তাকে তিরস্কার করি।
শনিবার বিকালে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউণ্ডেশন (পিকেএসএফ) ভবনে এক আলোচনাসভায় আগত দরিদ্র শ্রেণির প্রতিনিধিদের উদ্দেশ্যে তিনি একথা বলেন।
‘অতিদরিদ্রদের অবস্থা ও উত্তরণের পথ’ শীর্ষক আলোচনাসভাটির আয়োজন করে পিকেএসএফ ও কৃষিশ্রমিক অধিকার মঞ্চ।
মন্ত্রী বলেন, সম্প্রতি দেশে জঙ্গিদের উৎপাত বৃদ্ধি পেয়েছে। তাই দারিদ্র্য বিমোচনের জন্য এ জঙ্গি দমন করতে হবে। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া জঙ্গিদের পৃষ্ঠপোষকতা করছেন। তিনি জঙ্গিদের নেত্রী। দেশের দারিদ্র্য বিমোচন ও সামগ্রিক উন্নয়ন করতে হলে আসুন সবাই একসঙ্গে তাকে তিরস্কার করি।
ইনু বলেন, শেখ হাসিনার সরকার গ্রামের, কৃষকের, নারীদের এবং দরিদ্রদের সরকার। এ সরকার দেশের সামগ্রিক উন্নয়নে কাজ করছে। তবে অতিদরিদ্রদের কিভাবে স্থায়ী উন্নয়ন করা যায় সে পরিকল্পনা করতে হবে।
তিনি বলেন, হতদরিদ্ররা সম্পদ থেকে দূরে আছে, শিক্ষা থেকে দূরে আছে, ক্ষমতা থেকে দূরে আছে ও বাজার থেকে দূরে আছে। সঠিক পরিকল্পনার মাধ্যমে তাদের এ-সমস্যা সমাধান করতে হবে।
তিনি আরও বলেন, অতিদরিদ্রদের উন্নয়নে রাষ্ট্রকে দায়িত্ব নিতে হবে। রাষ্ট্রকে তাদের সম্মানিত নাগরিকের স্বীকৃতি দিতে হবে। তাদেরকে খাসজমি ও জলাশয়ে যাওয়ার (বাসস্থান করে দিতে হবে সরকারকে) অধিকার দিতে হবে।
পিকেএসএফ’র সভাপতি ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ বলেন, পিকেএসএফ দারিদ্র্য বিমোচন করবে এ লক্ষ্যেই প্রতিষ্ঠিত হয়। কিন্তু মাঝে পথ হারিয়ে ফেলে। এটি ক্ষুদ্র ঋণদানকারী প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়।
তিনি বলেন, পিকেএসএফ’র সদস্যরা অংশিদারিত্বের ভিত্তিতে কাজ করে। সবাই মিলে কাজ করি। কেউ কারও জন্য কাজ করি না। পিকেএসএফ শুধু ক্ষুদ্র ঋণদানকারী প্রতিষ্ঠান না। এটি উন্নয়ন সংস্থা।
তিনি জানান, ২০০৭ সালে যারা ঋণ নিয়েছেন তাদের মাত্র সাত শতাংশ দারিদ্র্যসীমার উপরে উঠেছে। এরপর ২০০৯ সালে ঋণ নিয়ে দারিদ্র্যসীমার উপরে উঠেছে নয় দশমিক চার শতাংশ। আর ২০১৩ সালে দারিদ্র্যসীমার উপরে উঠে এসেছে ১০ শতাংশ।
তিনি আরও বলেন, আমাদের লক্ষ্য ২০৩০ সালের মধ্যে অতিদারিদ্র্য নির্মূল করতে হবে। এ লক্ষ্য বাস্তবায়নের জন্য অতিদরিদ্র গোষ্ঠীর ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে তাদেরকে উপরের দিকে তুলে আনতে হবে। তাদের উন্নয়ন ছাড়া অতিদারিদ্র্য নির্মূলের লক্ষ্য বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে না।

শেয়ার