গুম-খুনে বিএনপি জড়িত: আওয়ামী লীগ

Awoamilug
সমাজের কথা ডেস্ক॥ খালেদা জিয়ার বক্তব্যের পাল্টায় গুম-অপহরণের জন্য বিএনপিকে দায়ী করেছে আওয়ামী লীগ। নারায়ণগঞ্জে অপহৃত সাতজনের লাশ উদ্ধারের পর বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে দলের প্রচার সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, “খালেদা জিয়া সন্ত্রাসের নেত্রী। হত্যা-গুম-অপহরণের সঙ্গে তার দলের নেতাকর্মীরা যুক্ত।”
সারাদেশে অপহরণ করে গুম ও হত্যার অভিযোগ বিএনপি করে এলেও সরকারের মন্ত্রীরা তা অস্বীকার করে আসছিলেন। নারায়ণগঞ্জে তোলপাড় করা ঘটনার পর খালেদা জিয়া বুধবার বলেছিলেন,“গুম, হত্যায় জড়িত ছাত্রলীগ-যুবলীগ। এদের কারণে দেশের প্রত্যেকটি মানুষ, ুদ্র ব্যবসায়ী, বড় ব্যবসায়ী, শ্রমিক সবাই অতিষ্ঠ।” বিএনপির দাবি, গত এক বছরে তাদের ৩১০ জন নেতা-কর্মী গুম অথবা হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন।
হাছান মাহমুদ বলেন, “বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং চার জাতীয় নেতাকে হত্যার মধ্য দিয়ে জিয়াউর রহমান বাংলাদেশে প্রথম গুম-হত্যার রাজনীতি শুরু করেন।” খালেদা জিয়ার উদ্দেশে তিনি বলেন, “২০০১-২০০৬ সাল পর্যন্ত উনার শাসনামলে আওয়ামী লীগের ২১ হাজার নেতাকর্মীকে হত্যা-গুম করা হয়। ২০০১ সাল থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত ৮ হাজার ৪৩৩ জন হত্যা-গুমের স্বীকার হয়েছে। “উনার হত্যা-গুমের রাজনীতি থেকে নিজ দলের নেতাকর্মীরাও রা পায়নি।”
নারায়ণগঞ্জে গত রোববার অপহৃত হন আওয়ামী লীগ সমর্থিক কাউন্সিলর নজরুল ইসলামসহ সাতজন। এর মধ্যে ছয়জনের লাশ বুধবার এবং একজনের লাশ বৃহস্পতিবার শীতল্যা নদী থেকে উদ্ধার করা হয়।
এই ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানিয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, “যেই জড়িত হোক না কেন কিংবা যে দলের হোক না কেন তাদেরকে সনাক্ত করে খুঁজে বের করে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া হোক, তা আমাদের দল চায় এবং সরকারও এেেত্র বদ্ধপরিকর।”
সাবেক এই মন্ত্রী বাংলাদেশে স্থিতিশীলতা রায় হত্যা, সন্ত্রাস, গুম, অপহরণ রুখে দাঁড়াতে জনগণের প্রতি আহ্বান জানান।
ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলনে হাছান মাহমুদের সঙ্গে ছিলেন দলের দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক অসীম কুমার উকিল প্রমুখ।

শেয়ার