বেনাপোলে পুলিশের সাথে বন্দুক যুদ্ধে ২ শিবির নেতা আহত

ahoto
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ বেনাপোলে পুলিশের বন্দুক যুদ্ধে ২ শিবির নেতা আহত হয়েছে। তারা হলো, যশোর জেলা পশ্চিম শাখার সেক্রেটারি রুহুল আমিন। তিনি ঝিকরগাছা উপজেলার ফুলবাড়িয়া গ্রামের রুহুল কুদ্দুসের ছেলে এবং শার্শা উপজেলা সভাপতি আবুল কাশেম, তিনি একই উপজেলার অগ্রভুলট গ্রামের মহিউদ্দিনের ছেলে। সোমবার দুপুরে মোটরসাইকেলযোগে তারা দুইজন শার্শার বারোপোতা গ্রামে যাচ্ছিলেন। পথে অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্পের সদস্যরা তাদের আটক করে বেনাপোল বন্দর থানায় সোপর্দ করে। সন্ধ্যার পর তাদের নিয়ে যাওয়া হয় ডিবি অফিসে। আটক শিবিরের দুই নেতার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী অস্ত্র উদ্ধারের জন্য রাত ১টার দিকে শার্শা উপজেলার শিকড়ি বটতলায় জাহাঙ্গীর মেম্বারের ইটভাটার কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। এ সময় সেখানে ওঁত পেতে থাকা শিবিরের অপর ক্যাডাররা পুলিশকে লক্ষ্য করে কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়ে। পুলিশও এ সময় তাদেরকে লক্ষ্য করে পাল্টা ১০ রাউন্ড এবং শিবির ক্যাডাররা ২০ রাউন্ড গুলি ছোড়ে। গোলাগুলিতে শিবির নেতা রুহুল আমিন ও আবুল কাশেম আহত হন। তাদের যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ান স্যুটারগান, দুই রাউন্ড গুলি, দুটি হাতবোমা এবং ছাত্রশিবিরের চাঁদা আদায়ের রসিদ উদ্ধার করা হয়েছে বলে বেনাপোল বন্দর থানার ওসি অপূর্ব হাসান দাবি করেছেন। গুলিবিদ্ধ রুহুল আমিন যশোর এমএম কলেজে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শেষ বর্ষের ছাত্র এবং ইসলামী ছাত্রশিবির জেলা পশ্চিম শাখার সেক্রেটারি। আবুল কাশেম একই কলেজে ইসলামের ইতিহাসের প্রথমবর্ষের ছাত্র এবং শার্শা উপজেলা শিবিরের সভাপতি।

শেয়ার