ইরাকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের পর প্রথম ভোট

us armi
সমাজের কথা ডেস্ক॥ ইরাক থেকে ২০১১ সালে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের পর প্রথম জাতীয় নির্বাচন শুরু হয়েছে।
স্থানীয় সময় সকাল ৭ টা থেকে শুরু হয়েছে ভোটগ্রহণ। চলবে সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত।
দেশের পশ্চিমাঞ্চলে ক্রমবর্ধমান বিদ্রোহী তৎপরতার মধ্যে অনুষ্ঠিত এ ভোটে প্রধানমন্ত্রী নূরি আল মালিকি তৃতীয় মেয়াদে জিতবেন বলে আশা করা হচ্ছে।
২০০৮ সালের পর থেকে ইরাক সবচেয়ে বাজে সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। দেশটিতে কেবল গত এক সপ্তাহেই নিহত হয়েছে ১৬০ জন।
দেশের ৫০ হাজার ভোটকেন্দ্রে ভোট দিচ্ছে ২ কোটির বেশি নিবন্ধিত ভোটার।
নির্বাচনকে ঘিরে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। বাগদাদের রাস্তা প্রায় জনশূন্য বলে জানিয়েছেন এক বিবিসি সংবাদদাতা। ভোটারদেরকে পায়ে হেঁটেই ভোটকেন্দ্রে যেতে হবে বলে জানান তিনি। কারণ, নিরাপত্তার কারণে ভোটের দিনটিতে যান চলাচল নিষিদ্ধ করেছে কর্তৃপক্ষ।
তাছাড়া, ভোটারদেরকে ভোট দিতে দেয়ার আগে তাদেরকে কয়েকবার করে তল্লাশি করারও ব্যবস্থা করা হয়েছে।
বুধবার ইরাকে সহিংসতার প্রথম ঘটনাটি ঘটেছে উত্তাঞ্চলীয় কিরকুকের দিবিস শহরে। সেখানে রাস্তার ধারে পেতে রাখা বোমা বিস্ফোরণে ভোট কেন্দ্রের পথে যাওয়ার সময় দুই নারী নিহত হয়েছে।
ভোটের ফল খুব শিগগিরই পাওয়ার আশা করা ঠিক হবে না বলে জানিয়েছেন সংবাদদাতারা। নির্বাচনের পর সরকার গঠন করতে ১০ মাস সময়ও লেগে যেতে পারে বলে জানান তারা।

শেয়ার