শিবিরের কোপে দুই পা হারালেন ছাত্রলীগ কর্মী মাসুদ

masud
সমাজের কথা ডেস্ক॥ শিবিরের হামলায় আহত রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ছাত্রলীগ কর্মী মাসুদ হোসেনের বাম পাও কেটে ফেলা হয়েছে।

হামলায় তার ডান পায়ের গোড়ালির ওপর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় ও বাম পায়ে মারাত্মক জখম হয়। পরে হাসপাতালে অস্ত্রোপচার করে তার বাম ও কেটে ফেলা হয়েছে।

হামলায় অপর ছাত্রলীগ নেতা টগরের ডান হাত ও ডান পায়ের রগ কেটে গেছে।

চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে রাবি ছাত্রলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান রানা বাংলানিউজকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি আরো জানান, উন্নত চিকিৎসার জন্য তাদের ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আহত মাসুদ ও টগর রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছে।
মঙ্গলবার সকাল সোয়া ৮টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের হবিবুর রহমান হলের পাশে রাবি ছাত্রলীগের ছাত্রবৃত্তি বিষয়ক সম্পাদক ও ফোকলোর বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী টগর মোহাম্মাদ সালেহ এবং ইতিহাস বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগ কর্মী মাসুদ হোসেনের ওপর হামলা চালায় শিবির ক্যাডাররা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বাংলানিউজকে জানান, সকাল ৮টার দিকে টগর ও মাসুদ হবিবুর রহমান হলের পাশের রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলেন। এসময় আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা কয়েকজন শিবির ক্যাডার অতর্কিত ককটেল ফাটিয়ে তাদের ওপর হামলা করে।

এসময় শিবির ক্যাডাররা তাদের উপর্যুপরি কুপিয়ে ফেলে রেখে চলে যায়। এতে মাসুদের এক পা বিচ্ছিন্ন ও অন্য পা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এছাড়াও তার মাথায় গুরুতর আঘাত রয়েছে এবং টগরের ডান হাতের ও পায়ে রগ কেটে যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

রাবি ছাত্রলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান রানা বাংলানিউজকে বলেন, শিবির ক্যাডাররা পরিকল্পিতভাবে টগর ও মাসুদকে কুপিয়েছে।

মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেন বাংলানিউজকে জানান, শিবির কর্মীরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় জড়িতদের আটক করতে পুলিশের অভিযান শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত ১০ জনকে আটক করা হয়েছে।

শেয়ার