১৫ মে থেকে ভোটার হালনাগাদ

Rokib
সমাজের কথা ডেস্ক॥ প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ জানিয়েছেন, চলতি বছরের ১৫ মে থেকে সমগ্র দেশে তিন ধাপে ভোটার হালনাগাদের কাজ শুরু হবে।

সোমবার বিকেলে শেরে বাংলানগর নির্বাচন কমিশন (ইসি) মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ তথ্য জানান।

সিইসি জানান, ১৫ মে ভোটার হালনাগাদের কাজ শুরু করবো, এ কাজ শেষ হবে ৩১ ডিসেম্বর নাগাদ। ২০১৫ সালের পয়লা জানুয়ারি যাদের বয়স ১৮ বছর পূর্ণ হবে তারা ভোটার হতে পারবেন এবং তাদের ভোটার হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করবো। এবার তিন ধাপে ভোটার হালনাগাদ করা হবে।

প্রথম থাপে ২০০ উপজেলা, দ্বিতীয় ধাপে ২০০ উপজেলা এরপরে বাদ বাকি উপজেলায় ভোটার হালনাগাদ করা হবে বলে জানান সিইসি।

সিইসি আরও জানান, এবার ব্যাপকভাবে পাবলিসিটি করা হবে। জনগণের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি করা হবে। যারা গতবার বাদ পড়েছেন এবার তারা অন্তর্ভুক্ত হবেন।

কাজী রকিব বলেন, এবার ভোটার কম হবে, কারণ এবার দুই বছরের মাথায় ভোটার হালনাগাদ করা হচ্ছে। এর আগে তিন বছরের মাথায় ভোটার হালনাগাদ করা হয়েছিল।

‘আমরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে তথ্য সংগ্রহ করবো। তবে যারা দ্বৈত ভোটার হবেন তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে’ বলেন কাজী রকিবউদ্দিন।

তিনি জানান, আরও কয়েক বছর লাগবে স্মার্টকার্ড দেওয়ার জন্য। আমরা উন্নতমানের কার্ড দিতে চাই।

কাজী রকিব জানান, ২০১৪ ও ২০১৫ সালে ভোটারযোগ্যদের এ তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হবে। বাড়ি বাড়ি গিয়ে দেশজুড়ে তিন ধাপে এ কাজ চলবে।

ভোটার হালনাগাদ প্রসঙ্গে কাজী রকিব আরও জানান, দেশের সব উপজেলাকে তিন পর্বে ভাগ করে প্রত্যন্ত অঞ্চল, উপজেলা, পৌরসভা ও সিটি করপোরেশনকে এর আওতায় আনা হবে।

রোহিঙ্গা প্রসঙ্গে সিইসি জানান, রোহিঙ্গারা যাতে ভোটার না হয় সেই বিষয়ে বিশেষ কমিটি গঠন করা হবে। রোহিঙ্গারা যেন ভোটার তালিকাভুক্ত হতে না পারে সেজন্যে গতবারের মতো এবারও বিশেষ কমিটি কাজ করবে।

বরিশাল সদর উপ-নির্বাচন প্রসঙ্গে সিইসি জানান, দশম জাতীয় সংসদের বরিশাল-৫ সদর শূন্য আসনে ১২ জুন উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। মনোয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন ১১ মে। মনোনয়ন যাচাই-বাছাই ১৪ মে এবং প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ২১ মে ধার্য করা হয়েছে।

শেয়ার