‘শুল্ক ও কোটামুক্ত সুবিধা পাবে বাংলাদেশ’

amin
সমাজের কথা ডেস্ক॥ মার্কিন বাণিজ্য প্রতিনিধি দলের প্রধান মাইকেল জে ডিলেনি বলেছেন, ‘টিকফার আওতায় নয় স্বল্পোন্নত দেশ (এলডিসি) হিসেবে বিশ্ববাণিজ্য সংস্থার (ডাব্লিউটিও) নিয়ম অনুযায়ী যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে শুল্ক ও কোটামুক্ত সুবিধা পাবে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ চীন, হংকং কিংবা ভিয়েতনামের চেয়ে বেশি শুল্ক দেয় এ বক্তব্য সঠিক নয়। যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে মোসট ফেবার নেশনস (এমএফএন) হিসেবে সুবিধা পায় বাংলাদেশ।’
টিকফা পরিষদের প্রথম আলোচনার অগ্রগতি নিয়ে আয়োজিত এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ সব কথা বলেন।
প্রেস বিফ্রিংয়ে অন্যদের মধ্যে বাংলাদেশের বাণিজ্য সচিব মাহবুব আহমেদ, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ডাইরেক্টর জেনারেল (ডিজি) মাহফুজুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।
জে ডিলেনি বলেন, ‘টিকফা ফোরামের আলোচনায় যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে শ্রম নিরাপত্তা ইস্যু, পাবলিক টেন্ডার প্রসিউকিশন, যুক্তরাষ্ট্র থেকে তুলা আমদানির ক্ষেত্রে দু’বারের প্রাক-জাহাজীকরণ পরিদর্শন, ডায়েবেটিকস ড্রাগ ইস্যু, বৈদেশিক বিল পরিশোধে বিলম্ব, আঞ্চলিক সম্পর্ক উন্নয়নে বাংলাদেশ সরকারের গৃহীত প্রকল্প এবং বাংলাদেশে ব্যাপকহারে মেধাস্বত্ব অধিকার (আইপিআর) খর্বের বিষয়গুলো উঠে আসে। এ সব ইস্যুতে দুই দেশের সঙ্গে বাস্তবসম্মত ও ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে। জিএসপি শর্তপূরণে বাংলাদেশ অনেক অগ্রগতি দেখিয়েছে। বাংলাদেশের প্রস্তাবগুলো ভালো। তবে জিএসপি অ্যাকশন প্লান অনুযায়ী ডিজাইন করতে হবে। জিএসপি ফিরে পাওয়ার জন্য আরও অনেক কিছু করতে হবে।’
বাণিজ্যসচিব মাহবুব আহমেদ বলেন, ‘বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রে বিনিয়োগ কমে যাওয়ার বিষয়টি আলোচনায় তুলেছি। এ ছাড়া শুল্ক ও কোটামুক্ত বাজার সুবিধা, শুল্ক কমানো, বালি সম্মেলনের সিদ্ধান্ত এবং ইস্তাম্বুল অ্যাকশন প্লানের আলোকে বাজার সুবিধা চেয়েছি। এলডিসি হিসেবে সাব-সাহারা, আফ্রিকার কিছু দেশ এবং ক্যারেবিয়ান অঞ্চলের দেশগুলোকে যে ধরনের শুল্ক সুবিধা দেওয়া হয়েছে অনুরুপ শুল্ক সুবিধা বাংলাদেশকেও দেওয়ার জন্য আহ্বান জানানো হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র বিষয়গুলো বিবেচনার আশ্বাস দিয়েছে।’

শেয়ার