পাটকেলঘাটায় বৈশাখী মেলায় চলছে জুয়ার বোর্ড ও নগ্ন নৃত্য

Patkelghata
তালা (খুলনা) প্রতিনিধি॥ তালা উপজেলার পাটকেলঘাটা থানা সদরের ঐতিহ্যবাহী ফুটবল মাঠে ১২ দিনব্যাপি চলছে বৈশাখী মেলা। মেলায় অনুমতি ছিল- কৃষি উপকরণ প্রদর্শন এবং বাঙ্গালী ঐতিহ্য-সাংষ্কৃতিকে সাধারণ মানুষের সামনে তুলে ধরতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
অথচ মেলার সার্বিক মাঠটি ঘুরে দেখা গেছে বাচ্চাদের মনোরঞ্জনের জন্য দেশীয় তৈরি ট্রেন চলছে, ঘুরছে নাগরদোলা। অন্য পাশে চলছে হাউজিং বাম্পার, যাত্রা ও জুয়ার বোর্ড। পরিবার-পরিজন নিয়ে বৈশাখী মেলায় যাত্রা উপভোগ করতে গিয়ে জনসাধারণকে পড়তে হচ্ছে বিপাকে। মেলায় যাত্রার নামে আছে একটি মঞ্চ। যেখানে যাত্রার নামে টিকিট বিক্রি করে দর্শকদেরকে উপভোগ করানো হচ্ছে অশ্লীল নৃত্য। এ নৃত্য প্রদর্শন করছে যুবতি মেয়েরা। হিন্দি সিনেমার নায়িকাদেরকে হার মানিয়ে খোলামেলা দৃশ্যে নৃত্য প্রদর্শণ করা হচ্ছে এ মঞ্চে। তরুণ, যুবক ও মধ্য বয়সীরা এ নৃত্য উপভোগ করতে গিয়েও অনেক সময় হট্টগোল করছে।
অপর দিকে মাঠে এলাকার রাজনৈতিক নেতাদের ছত্রছায়ায় ও পুলিশ প্রহরায় চলছে ওপেন জুয়ার আসর। মাঠের পশ্চিম পাশে জুয়ার বোর্ড থাকছে ৪টি। যেখানে শত শত জুয়াড়িদের সমাগম থাকছে। রমরমাভাবে চলছে এ মেলায় জুয়ার ৪ টি বোর্ড। প্রতিদিন প্রায় কয়েক লক্ষ টাকার জুয়া চলছে প্রতিটি বোর্ডে। গ্রাম বাংলার খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ এ বোর্ডে প্রতিদিন দু’হাতে উড়াচ্ছে অগাধ টাকা। জুয়ার বোর্ডে গিয়ে দেখা যায়, গ্রামের সাধারণ দিনমজুর থেকে শুরু করে ১৪-১৫ বছরের কিশোর পর্যন্ত খেলা করছে। আর জুয়ার নামগুলো দেখে বোঝার উপায় নেই যে এটি জুয়ার বোর্ড। কারণ লেখা: সাবান খেলা, বউ খেলা, চকরা খেলা সহ অনেক রকমের জুয়া। আর এই খেলা খেলে নিঃস্ব হচ্ছে কৃষক থেকে দিনমজুর, ব্যবসায়ী থেকে চাকরীজীবি।
বোর্ডের পার্শে দাড়িয়ে থাকা ১৫-১৬ বছরের এক যুবকের সাথে কথা হলে সে জানায় বাপ ধান বিক্রি করতে দিয়েছিল ধান বিক্রি করে মেলা দেখতে এসেছিলাম। এক পর্যায়ে সাবান খেলা খেলি। ১০-১৫ মিনিটের মধ্যে ১৪ হাজার টাকা হেরে গেছি। এখন ভাবছি বাড়ি যেয়ে বাপকে কি জবাব দিব। এ রকম শত শত লোক টাকা হেরে দু’চোখের জল ফেলে ফিরে যাচ্ছে।
এভাবে অশ্লীল নৃত্য প্রদর্শন ও জুয়ার বোর্ড উপভোগ করতে গিয়ে গ্রাম বাংলার সাধারণ মানুষের যে অর্থদন্ডি চলছে আগামী দশ বছরেরও অধিক সময়ে তার অভাব ঘুচবে না বলে মন্তব্য করেন বিভিন্ন সচেতন মহল। তাছাড়া নগ্ন নৃত্য দেখে যুবসমাজ তাদের নৈতিক চরিত্র হারাতে বসেছে।
বিষয়টি তালা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি শেখ নুরুল ইসলামকে জানালে তিনি বলেন- পত্রিকার মাধ্যমে প্রশাসন সহ উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে দাও। আমি সভাপতি হিসেবে বৈশাখী মেলার নামে এ রকম নগ্ন নৃত্য ও জুয়া খেলার পক্ষপাতি নই।
এ ব্যাপারে পাটকেলঘাটা থানা ডিউটি অফিসার অনুপম এর সাথে কথা বললে তিনি প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলার পরামর্শ দেন।

শেয়ার