রাবির সিনেট ও সিন্ডিকেট নির্বাচনে সাদা দলের ভরাডুবি

RU
সমাজের কথা ডেস্ক॥ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেটে শিক প্রতিনিধি এবং সিন্ডিকেট ও ডিন নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াতপন্থিদের সাদা প্যানেলের ভরাডুবি হয়েছে। বেশিরভাগ পদে জয় পেয়েছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মুল্যবোধে বিশ্বাসী আওয়ামীপন্থিদের হলুদ প্যানেল।

ভোট গণনা শেষে বুধবার রাত ১০টার দিকে নির্বাচনের ফলাফর ঘোষণা করেন নির্বাচন পরিচালক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রিার প্রফেসর এন্তাজুল হক।

নির্বাচনে সিনেটে শিক প্রতিনিধিদের মোট ৩৩টি পদের মধ্যে ৩০টি পদে হলুদ প্যানেল জয়লাভ করেছে। বাকি ৩টি পদে জয়লাভ করেছে জাতীয়তাবাদ ও ইসলামী মূল্যবোধে বিশ্বাসী শিক গ্রুপ এবং জাতীয়তাবাদী শিক ফোরামের ‘সাদা প্যানেল’।

সিন্ডিকেট সদস্য নির্বাচনে পাঁচটি পদের মধ্যে চারটি পদে হলুদ প্যানেলের শিকরা এবং বাকি একটি পদে সাদা প্যানেলের শিকরা নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়া আটটি অনুষদের ডিন পদের মধ্যে হলুদ প্যানেলে ছয়টি পদে, সাদা প্যানেল একটি পদে এবং হলুদ প্যানেলের বিদ্রোহী প্রার্থী একটি পদে নির্বাচিত হয়েছেন।

শিা পরিষদের ছয়টি পদের মধ্যে পাঁচটিতে হলুদ প্যানেল এবং একটি পদে সাদা প্যানেল নির্বাচিত হয়েছে। এছাড়া ফাইন্যান্স কমিটি এবং পরিকল্পনা ও উন্নয়ন কমিটির শিক প্রতিনিধিদের দুটি পদেই নির্বাচিত হয়েছেন হলুদ প্যানেলের শিাকরা।

বুধবার সকাল ৮টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের জুবেরি ভবনে শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের প্রায় সাড়ে ১১শত শিক ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন।

সিন্ডিকেট সদস্য নির্বাচনে হলুদ প্যানেলের বিজয়ী প্রার্থীরা হলেন- প্রাধ্য পদে ড. জাহাঙ্গীর আলম সাউদ (লিটন), প্রফেসর পদে ড. সেলিনা পারভিন, সহযোগী অধ্যাপক পদে আবদুল্লাহ আল মামুন, সহকারী অধ্যাপক পদে উজ্জ্বল হোসেন। সাদা প্যানেল থেকে প্রভাষক পদে বিজয়ী হয়েছেন ফিশারিজ বিভাগে ড. আল-আমিন সরকার।

আটটি অনুষদের ডিন পদে হলুদ প্যানেলের বিজয়ীরা হলেন- কলা অনুষদে প্রফেসর ড. খন্দকার ফরহাদ হোসেন (অনীক মাহমুদ), বিজ্ঞান অনুষদে প্রফেসর ড. হাবিবুর রহমান, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদে প্রফেসর নিলুফার সুলতানা, জীব ও ভূ-বিজ্ঞান অনুষদে প্রফেসর আব্দুল লতিফ, কৃষি অনুষদে ড. শাহানা কায়েস এবং প্রকৌশল অনুষদে প্রফেসর ড. আবু বকর ইসমাইল।

সাদা প্যানেল থেকে বিজনেস স্ট্রাডিজ অনুষদের ডিন পদে বিজয়ী হয়েছেন প্রফেসর ড. আমজাদ হোসেন। আইন অনুষদের ডিন পদে বিজয়ী হয়েছেন হলুদ প্যানেলে বিদ্রোহী প্রার্থী প্রফেসর বিশ্বজিৎ চন্দ।

শেয়ার