কালীগঞ্জের ফেনসিডিল সম্রাট মিয়ারুলের সুদে ব্যবসা জমজমাট ॥ সর্বস্ব খুইয়ে পথে বসেছেন ৪ ব্যবসায়ী আরও সুদখোরের সন্ধান

sudebabosha
নিজস্ব প্রতিবেদক, কালীগঞ্জ ॥ কালীগঞ্জের আলোচিত ফেন্সিডিল স¤্রাট মিয়ারুলের অবৈধ সুদে কারবারী ব্যবসাও জমজমাট হয়ে উঠেছে। ইতিমধ্যে তার সুদের ঘানি টানতে গিয়ে সর্বস্ব খুই পথে বসেছেন কালীগঞ্জের ৪ দোকানী। তবে মাদক আর সুদে কারবারী মিনারুলকে মাত্র দু’ বছরেই কোটিপতি বানিয়েছে। আলোচিত এই সুদখোর ও ফেন্সিডিল ব্যবসায়ী এখন শহরের মুনসুর প্লাজার জিতু খেলাঘরের মালিকও বটে।
খোজ নিয়ে জানা যায়, এক সময় পেটে-ভাতের রাখাল ছিল মিনারুল। পরে ৩ চাকার ভ্যান চালিয়ে অতি কষ্টে সংসার চললেও ভাগ্যের চাকা ঘুরেনি। এরপর অপরাধ জগতে প্রবেশ মিনারুলের। ফেন্সিডিল ব্যবসা তাকে টাকার মুখ দেখিয়েছে। কম সময়ে কোটিপতি বনে যায়। ফেন্সিডিল ব্যবসার কালো টাকা সাদা করতে প্রায় দু’বছর আগে শহরের বাসষ্ট্যান্ড এলাকার মুনসুর প্লাজায় খেলা-ধুলার সামগ্রীর দোকান খুলে বসে। এর নাম দেয় জিতু খেলা ঘর। এখানে বসে শুরু করে হুন্ডি কাজলের মতো সুদে কারবারী। লাখে মাসিক ১০ হাজার টাকা হারে বিনিয়োগ করে অনন্ত: ১০ লাখ টাকা। এভাবেই শুরু হয় বলিদাপাড়ার আলোচিত মাদক ব্যবসায়ী মিয়ারুলের সুদে কারবারের রমরমা ব্যবসা। মুনসুর প্লাজা মার্কেটে অগ্রিম পজিশন নিয়ে ব্যবসা করতে এসে তিন দোকানী মাদক ব্যবসায়ী মিয়ারুলের চড়া সুদের ফাঁদে পা দিয়ে মাত্র এক বছরের মধ্যে আম-ছালা সব হারিয়ে এখন পথে পথে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এরা হলো যথাক্রমে রাইড চয়েজের মালিক মিলন হোসেন, ওয়ায়েজ কসমেটিকস এর মালিক নুর ইসলাম এবং মেসার্স জাহিন কসমেটিস্ক এর মালিক সোহাগ হোসেন। সুত্রটি জানায়, মিলন হোসেন দেড় লাখ নুর ইসলাম এক লাখ ও সোহাগ হোসেন ২ লক্ষ টাকা নিয়ে সুদ গুনেছেন আসলের কয়েকগুণ। সম্প্রতি এসব ব্যবসায়ীরা তাদের দোকান মিয়ারুলের লিখে দিয়ে পথে পথে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। ঐ মার্কেটের রং ধনু নামে আরেক দোকানী একইভাবে পথে বসার উপক্রম হয়েছেন। হেলাইয়ের ৪নং ওয়ার্ড কমিশনার সাজু পর্যন্ত সুদে কারবারী মিয়ারুলের হাত থেকে রক্ষা পায়নি। এদিকে মহাসুদখোদ মিনারুলের মতো কালীগঞ্জে আরও কয়েকজন সুদেকারবারীর খোজ মিলেছে। এদের মধ্যে রয়েছে কিনিক ও ঔষুধ ব্যবসায়ী। বৈধ ব্যবসার আড়ালে এরা দির্ঘদিন ধরে সুদেকারবারীর ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। তাদের সুদের টাকা গুনতে গিয়ে এ পর্যন্ত অনেকে সর্বস্ব হারিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। তারা এসব সুদখোরের মুখোশ খুলে দেয়াসহ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়ে ভুক্তভোগীরা সংবাদ প্রকাশের দাবি জানিয়েছেন। অভিযোগের সত্যতা খতিয়ে দেখে সংবাদ প্রকাশ করা হবে।

শেয়ার