অভয়নগরে যুবলীগ নেতা শিমুল জাহিদ খলিল হত্যাসহ ডজনখানেক মামলার আসামি সাইফুল বন্দুকযুদ্ধে নিহত

bonduk juddha
অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি॥ অভয়নগরে খলিল শিকারী ব্যবসায়ী জাহিদ ও যুবলীগ নেতা শিমুল হত্যা ও অস্ত্রসহ প্রায় ডজনখানেক মামলার আসামি সাইফুল শিকারী পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। নিহত সাইফুল একটি নিষিদ্ধ ঘোষিত পার্টির সক্রিয় ক্যাডার ছিলেন। মঙ্গলবার গভীর রাতে উপজেলার শংকরপাশা গ্রামের বিশ্বাস পাড়ায় এই বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে ২টি বন্দুকের গুলি ও একটি দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ।
পুলিশ জানায়, উপজেলা শংকরপাশা গ্রামের মোহন শিকারীর ছেলে সাইফুল শিকারী ২০০৮ সালের ৫ মার্চ খলিল শিকারীকে হত্যা করে আলোচনার শীর্ষে উঠে আসে। ২০১১ সালের ১৩ ডিসেম্বর সে নওয়াপাড়া উত্তরা ব্যাংকের সামনে মেসার্স শোভন ট্রেডার্সের কর্মচারী জহিদকে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা করে। ২০০১৩ সালের ২৭ জানুয়ারী সাইফুলের হাতে খুন হন নওয়াপাড়া পৌর যুবলীগের সাধারন সম্পাদক আলমগীর হোসেন শিমুল। এছাড়া তার বিরুদ্ধে অভয়নগর থানায় ৩টি অস্ত্র, ২টি বিস্ফোরক ও একাধিক চাঁদাবাজীর মামলা রয়েছে। সে দির্ঘদিন পলাতক ছিলো। মঙ্গলবার বিকালে যশোর র‌্যাব গোপন সংবাদের ভিক্তিতে শংকরপাশা গ্রামে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে। পরে তাকে অভয়নগর থানায় সোপর্দ করে। পুলিশ ওই রাতে তাকে নিয়ে অস্ত্র উদ্ধারে গেলে পুর্ব থেকে ওৎ পেতে থাকা সাইফুলের সহযোগি সন্ত্রাসীরা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে তাকে ছিনিয়ে নিতে পুলিশের ওপর গুলি ছোড়ে। জবাবে পুলিশও পাল্টা গুলি করে। এ সময় পালানোর চেষ্টা করলে সাইফুল গুলিবিদ্ধ হয়। পুলিশ আহতবস্থায় সাইফুলকে উদ্ধার করে উপজেলা ¯া^াস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয় কিন্তু কর্তব্যরক চিকিৎসক তাকে মৃত্যু ঘোষণা করেন। বুধবার সকালে লাশ ময়না তদন্তের জন্য যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায় পুলিশ। এদিন বিকালে নামাযে জানাজা শেষে পারিবারিক গোরস্থানে তার দাফন সম্পন্ন হয়।

শেয়ার