বিজ্ঞান চর্চায় গুরুত্বারোপ প্রধানমন্ত্রীর

pm
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিজ্ঞান একাডেমির স্বর্ণপদক প্রদান অনুষ্ঠানে বিজ্ঞান চর্চার প্রতি গুরুত্বারোপের কথা উল্লেখ করেন। তিনি ছাত্রছাত্রী ও নতুন প্রজন্মকে বিজ্ঞানের ওপর আরও বেশি লেখাপড়া, চর্চা ও গবেষণার আহ্বান জানান। নতুন প্রজন্মই পারে বিজ্ঞান চর্চার মাধ্যমে জাতির সত্যিকার উন্নতি সাধন করতে। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ। রবিবার রাজধানীর ওসমানী মিলনায়তনে বিজ্ঞান একাডেমি আয়োজিত ২২ জন বিজ্ঞানীকে স্বর্ণপদক প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী একথা বলেন। বাংলাদেশের মতো দেশে বিজ্ঞান চর্চার বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ। ুধা ও দারিদ্র্য থেকে মুক্তির জন্য একটি জাতির প্রয়োজন বিজ্ঞান চর্চার সহায়ক ত্রে তৈরি করা। বাংলাদেশের বিজ্ঞানীরা মূল্যায়ন ও গবেষণার সুযোগ পেলে অনেক সফল হতে পারেন এর অনেক উদাহরণ তারা দেখিয়েছেন। বাংলাদেশে প্রতিনিয়ত খরা, বন্যা ও লবণাক্ততায় তিগ্রস্ত হচ্ছে জমির ফসল। আবহাওয়ার বিরূপ প্রভাবে দেশ তিগ্রস্ত হচ্ছে। বাংলাদেশ এখন খরা, বন্যা ও লবণাক্ততা সহিষ্ণু ধান আবিষ্কার করেছেন। আরও আবিষ্কার করেছে অধিক ফলনশীল, অধিক ভিটামিন ও জিঙ্কযুক্ত ধান। যার ফলে দেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করতে সম হয়েছে। বিজ্ঞানের অগ্রগতির জন্য অবশ্যই সরকারের সহযোগিতার প্রয়োজন রয়েছে। চার দলীয় জোট সরকারের সময় দেশী পাটের জন্মরহস্য উদ্ভাবনকারী বিজ্ঞানী গবেষণার জন্য অর্থ বরাদ্দ চেয়েও পায়নি। কিন্তু বর্তমান সরকার আগের মেয়াদে মতায় এসেই সেই বিজ্ঞানী ড. মাকসুদুল আলমকে ডেকে নিয়ে পাট গবেষণায় সহায়তা প্রদান করে; যার ফলস্বরূপ সেই বিজ্ঞানী দেশী পাটের জন্মরহস্য উন্মোচন করেছেন। সোনালি আঁশের দেশে সোনালী সম্ভাবনা আবার মাথা তুলে দাঁড়াতে সম হচ্ছে। জানা গেছে, এখন যে পাট উৎপাদন হবে তা আগের চেয়ে মানের দিক দিয়ে ভাল। এই পাট দিয়ে উন্নত ধরনের কাপড় তৈরির সম্ভাবনা রয়েছে। বিজ্ঞানীদের সাফল্য ও বিজ্ঞানের অর্জন কাজে লাগানো সম্ভব হয় সরকারের গণমুুখী পরিকল্পনার মাধ্যমে। বর্তমান সরকার সেই কাজটি করছে। শুধু ফসল উৎপাদনের েেত্র নয়, প্রতিটি েেত্র বিজ্ঞানকে ব্যবহার উপযোগী করে তুলছে বিজ্ঞানীরা। শুধু তাই নয়, বাংলাদেশী বিজ্ঞানীরাই বিদেশে গবেষণা করে আবিষ্কার করেছেন কৃত্রিম কিডনি, কৃত্রিম ফুসফুস। এছাড়া লাইন ছাড়াই দ্রুতগতির ট্রেন আবিষ্কার হয়েছে। বিজ্ঞানীদের জন্য দেশেই গবেষণা কাজের সুযোগ দিতে হবে। বিজ্ঞান আমাদের ুধা আর দারিদ্র্যপীড়িত বাংলাদেশকে পাল্টে দিতে পারে। মানুষ বিশ্বাস করে সব ধরনের সহযোগিতা পেলে একটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিনির্ভর দেশ হিসেবে বাংলাদেশ মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারবে।

শেয়ার