মহম্মদপুরে অস্ত্রসহ আটক ৩

Mohammadpur
মহম্মদপুর (মাগুরা) প্রতিনিধি॥ মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলা সদরের একটি বাড়িতে পুলিশের আকস্মিক অভিযানে দৌঁড়ে পালিয়ে গেছে ২ পেশাদার অপরাধী। এ সময় ওই বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে পুলিশ দেশীয় তৈরি একটি পাইপগান, ৩ রাউন্ড তাজা গুলি, ২টি কম্পিউটার, ৫টি সিমকার্ড, রেজিস্ট্রেশন বিহীন একটি ডিসকভার (১২৫ সিসি) মোটরসাইকেল ও ২টি জাতীয় পরিচয়পত্রসহ কিছু আসবাবপত্র জব্দ করে।
গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে দীর্ঘদিন সন্দেহের তালিকায় থাকা বাড়িটিতে আকস্মাৎ অভিযানে বেরিয়ে আসে আরো চাঞ্চল্যকর তথ্য।
পুলিশ ও স্থানীয় শাহীদুল ইসলাম জানান, উপজেলা সদরের কুদ্দুস মোল্যার একতলা বাড়িতে বিগত ২ মাস আগে ফরিদপুর সিএমবিঘাট এলাকার মৃত: মোকসেদ শেখের ছেলে হৃদয় শেখ ও একই জেলার বোয়ালমারী উপজেলার রাজাপুর গ্রামের জলিল শেখের ছেলে শরিফুল শেখ ভাড়াটিয়া হিসেবে ওঠে।
সুত্র জানায়, ভাড়াটিয়া ওই ২ ব্যক্তিকে দিনের বেলা কোথাও দেখা যায়না। তারা দিনের পুরোটা সময় বাড়িতে অবস্থান করে। রাতে বেরিয়ে পড়ে অপরাধ কার্যক্রমে। দীর্ঘদিন ধরে তারা নানাবিধ অপরাধ কর্মকান্ড ঘটিয়ে আসছে বলে পুলিশ প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে। সন্দেহজনক ওই বাড়িটিতে সোমবার সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে পুলিশ আকস্মিক অভিযানে গেলে অপরাধী হৃদয় ও শরিফুল দৌঁড়ে পালিয়ে যায়। সম্প্রতি সময়ে উপজেলা সদরে কয়েকটি বাড়িতে চুরির ঘটনায় তারা জড়িত থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
মহম্মদপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: মনিরুল ইসলামের নেতৃত্বে এসআই রবিউল ইসলাম সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে তল্লাশি চালিয়ে ওই বাড়ি থেকে দেশীয় তৈরি একটি পাইপগান, ৩ রাউন্ড তাজা গুলি, ২টি কম্পিউটার, ৫টি সিমকার্ড, রেজিস্ট্রেশন বিহীন একটি মোটরসাইকেল ও ২টি জাতীয় পরিচয়পত্রসহ কিছু আসবাবপত্র জব্দ করে। এ সময় সাথী (২০) ও ফাতেমা (২০) নামের ২ গৃহবধূকে পুলিশ আটক করে নিয়ে যায়। তাদের সাথে ২টি শিশুও রয়েছে।
এ ঘটনার পর গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলা পরিষদ অভ্যন্তর থেকে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ভাড়া বাড়ি থেকে পালিয়ে যাওয়া শরিফুলকে আটক করা হয়।
ওই অপরাধী চক্রের সাথে স্থানীয় একটি গ্রুপ জড়িত রয়েছে বলে নির্ভরশীল সূত্র জানিয়েছে।

শেয়ার