হরতালের নামে বিএনপি ও জামায়াত-শিবিরের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ॥ ইউপি চেয়ারম্যানসহ ৩৬ ক্যাডার জেল হাজতে

jessore karagar
নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোরে হরতালের নামে বিএনপি ও জামায়াত-শিবিরের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের মামলায় ইউপি চেয়ারম্যানসহ ৩৬ জন ক্যাডারকে জেল হাজতে পাঠিয়ে দিয়েছে আদালত।
রোববার যশোর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মারুফ আহমেদ মামলার শুনানী শেষে এ আদেশ দেন। আসামিরা হলো, চুড়ামনকাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুস সাত্তার, সরোয়ার হোসেন, জুয়েল হোসেন, আজিজুর রহমান, হায়দার আলী, ফিরোজ হোসেন, মিজানুর রহমান, আলমগীর হোসেন, হাদিছুর রহমান, নিজাম উদ্দিনর, শাহ আলম, শিমুল হোসেন, রনি, ওমর আলী, আনারুল ইসলাম, জামাল উদ্দিন, মাসুদ, সাহেব আলী, বাচ্চু, হাসান আলী, মাসুদুর রহমান, জাহাঙ্গীর হোসেন, ইকবাল হোসেন, মোহাম্মদ আলী, জামাল হোসেন, ইন্তাজ আলী, আইয়ুব আলী, আনোয়ার হোসেন, মোশারেফ হোসেন, আসাদ হোসেন, হেকমত আলী, বাহারুল ইসলাম, ওলিয়ার রহমান, জাকির হোসেন, কবির হোসেন, শামিম হোসেন ও পান্নু মিয়া। ।
জানাগেছে, গত বছরের ২৫ নভেম্বর রাত ১০ টার দিকে চুড়ামনকাটি বাজার সংলগ্ন মুন্সি মেহেরুল্লাহ রেল স্টেশন রোডে আলমের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে চেয়ারম্যান আব্দুস সাত্তারের নেতৃত্বে অর্ধশতাধিক সন্ত্রাসীদের নিয়ে হামলা চালায়। দোকান ভাংচুর করে মালামাল লুটপাটের পর ৭/৮ টি বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়। এ সময় তারা দোকান থেকে নগদ ১৮ হাজার টাকাসহ অর্ধ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি সাধন করে। এ ঘটনায় ২৯ নভেম্বর আলম চেয়ারম্যান আব্দুস সাত্তারসহ ২৩ জনের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন।
এ ছাড়াও ২৭ নভেম্বর ভোর ৫টার দিকে ওই সন্ত্রাসীরা চেয়ারম্যনের নেতৃত্বে ফারুক হোসেন নামে এক ব্যক্তিকে মারপিট, তার পিক-আপ গাড়ি ভাংচুর করে ৪/৫টি বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে চলে যায়। তারা যাওয়ার সময় ওই পিক-আপ চালকের কাছ থেকে নগদ ৩৫ হাজার টাকা নেয় এবং আরো ৭০ হাজার টাকার ক্ষতি সাধন করে। এ ব্যাপারে ফারুক হোসেন ২৪ জনের নামসহ অজ্ঞাতনামা আরো ৪/৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলা আসামিরা এতদিন পলাতক ছিল। গতকাল রোববার ওই এলাকার সন্ত্রাসীদের গডফাদার চেয়ারম্যান আব্দুস সাত্তারসহ ৩৬ জন আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। বিচারক তাদের জামিন আবেদন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরনের নির্দেশ দিয়েছেন।

শেয়ার