পেটে সোনার বিস্কুট!

gold
সমাজের কথা ডেস্ক॥
চোরাচালানের ক্ষেত্রে পেটকেই নিরাপদ ভেবেছিলেন। তাই সিঙ্গাপুরে ১২টি সোনার বিস্কুট খেয়ে ফেলেন তিনি। মলত্যাগের সময় বিস্কুটগুলো পেয়ে যাবেন এই আনন্দে বিমানবন্দরের কর্মকর্তাদের ফাঁকি দিয়ে সফলভাবেই ভারতে ফেরেন। তবে এরপরই বাধে বিপত্তি। পেটে তীব্র ব্যথা শুরু হয়। দৌঁড়ে যান নিকটস্থ হাসপাতালে। চিকিৎসকরা অস্ত্রোপচার করে দেখেন পেটে যেন সোনার খনি। একে একে ১২টি সোনার বিস্কুট বের হলো ‘রোগী’র পেট থেকে। প্রতিটির ওজন ৩৩ গ্রাম। মোট ৩৯৬ গ্রামের এ সোনার বিস্কুটগুলোর বাজার মূল্য প্রায় ১২ লাখ রুপি।
পেটে করে সোনা চোরাচালান করতে যেয়ে এমন বিপত্তিতে পড়েছেন দিল্লির চাঁদনী চকের এক ব্যবসায়ী।
স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমগুলো জানায়, ১০ দিন আগে সিঙ্গাপুর থেকে দেশে ফেরেন ৬৩ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি। দেশে আসার সময় পেটে করে ১২ পিস সোনার বিস্কুট নিয়ে আসেন তিনি। কিন্তু দেশে ফিরে মলত্যাগে সেগুলোতো পাচ্ছিলেনই না, বরং পেটে তীব্র ব্যথা শুরু। দ্রুত নিকটস্থ স্যার গঙ্গা রাম হাসপাতালে গেলে চিকিৎসকরা অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত নেন। অস্ত্রোপচারের আগে তিনি চিকিৎসদের বলেছিলেন, স্ত্রীর সঙ্গে ঝগড়া করে বোতলের ছিপি গিলে ফেলেছেন।
গঙ্গা রাম হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটিং সার্জন সি এস রামচন্দ্রন বলেন, অস্ত্রোপচারের পর প্রমাণ হলো, তিনি (ব্যবসায়ী) আমাদের ভুল বলেছেন। তার পেট থেকে একে একে ১২টি সোনার বিস্কুট বের করা হলো।
চিকিৎসকরা এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তিনি সদ্যুত্তর দিতে পারেননি। পরে তাকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়।

শেয়ার