ইরানে অপহৃত আরো ১২ বাংলাদেশিকে উদ্ধারের পর দেশে আনা হয়েছে

bangladeshi uddher
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ ইরান থেকে অপহৃত ১২ বাংলাদেশিকে উদ্ধার করেছে বাংলাদেশ অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। দুবাই এয়ারলাইন্সের একটি ফাইটে (এফজেড-৫৮৩) গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা ৩৫ মিনিটে তারা হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামেন। এরপর বিমানবন্দরের আনুষ্ঠানিকতা শেষে তাদের নিয়ে যাওয়া হয় ঢাকার সিআইডির সদর দফতরে। সেখানে উদ্ধারকৃতদের কাছ থেকে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহের পর নিজ নিজ পরিবারে ফিরিয়ে দেয়া হবে।
যশোরভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা রাইটস যশোর-এর সহযোগিতায় এসব বাংলাদেশিকে ফিরিয়ে আনা হয় বলে জানিয়েছেন পুলিশ সদর দফতরের জ্যেষ্ঠ তথ্য কর্মকর্তা একেএম কাররুল আহছান। ফেরত আনা ১২ জনকে বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টায় সিআইডির সদর দফতরে সংবাদ সম্মেলনে হাজির করা হয়। এসময় সিআইডির ডিআইজি সাইফুল ইসলাম, অতিরিক্ত ডিআইজি (সংঘবদ্ধ অপরাধ তদন্ত) শাহ আলম, বিশেষ পুলিশ সুপার আশরাফুল ইসলাম এবং রাইটস যশোরের নির্বাহী পরিচালক বিনয় কৃষ্ণ মল্লিক উপস্থিত ছিলেন।
গত বছরের ডিসেম্বর মাস থেকে এ নিয়ে মোট ৪১ জনকে বাংলাদেশে আনা হলো। এছাড়া একজন বাংলাদেশির মৃতদেহও আনা হয়। ইরান, গ্রিস ও তুরস্কসহ বিভিন্ন দেশে চাকরি দেওয়ার নামে এসব বাংলাদেশিকে ইরানের বন্দর আব্বাসে আটকে রেখে নির্যাতন করা হতো। আর নির্যাতিতদের সঙ্গে স্বজনদের কথা বলিয়ে দিয়ে অপরাধীচক্র অনেক অর্থ হাতিয়ে নিতো। মানবাধিকার সংগঠন রাইটস যশোর ব্যাপারটি জানার পর বাংলাদেশ ও ইরান সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতরকে অবহিত করে। খবর পেয়ে তাদের উদ্ধার করে ইরান পুলিশ তেহরানে বাংলাদেশ হাইকমিশনে হস্তান্তর করে।এ সময় ইরান পুলিশ সন্ত্রাসী চক্রের দুই সদস্যকে আটক করে। পরে বন্দিদের দেশে ফেরত পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়। রাইটস যশোরের নির্বাহী পরিচালক বিনয়কৃষ্ণ মল্লিক জানান, ফেরত আসা ১২ বাংলাদেশি ইরানের বন্দর আব্বাসে প্রায় তিন মাস বন্দি ছিলেন। এসময় বন্দি বাংলাদেশিদের শারীরিক নির্যাতন করতো সন্ত্রাসী চক্র। তাদের চিৎকার মোবাইল ফোনে স্বজনদের শোনানো হতো। স্বজনরা বন্দিদের বাঁচাতে সন্ত্রাসীদের চাহিদা অনুযায়ী টাকা পাঠাতেন।
রাইটস যশোর জানিয়েছে বন্দর আব্বাসে সন্ত্রাসীদের হাতে ১০৮ জন বাংলাদেশি বন্দি থাকার খবর পায় তারা। বন্দিদের মধ্যে ৫৪ জনের তালিকা তাদের হাতে আসে। রাইটস যশোর বাংলাদেশ ও ইরানের সংশ্লিষ্ট দফতরে যোগাযোগ করে সন্ত্রাসী চক্রটির সদস্যদের গ্রেফতার ও বন্দিদের উদ্ধারে তৎপরতা শুরু করে। ইরান পুলিশ গ্রেফতার করে নান্নু মিয়া ও তাজউদ্দিন নামে দুই বাংলাদেশিকে। ফলে ছত্রভঙ্গ হয়ে যায় চক্রটি। উদ্ধার হয় বন্দি বাংলাদেশিরা। প্রথম দফায় ২৯ জন জীবিত ও একজনকে মৃত ফেরত আনা হয়। আর দ্বিতীয় দফায় বৃহস্পতিবার ফিরিয়ে আনা হলো ১২ জনকে। শিগগির অন্যদের দেশে আনার ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান রাইটস যশোরের নির্বাহী পরিচালক বিনয়কৃষ্ণ মল্লিক।

শেয়ার