অপহরণের ৩২ ঘণ্টা পর উদ্ধার হলেন রিজওয়ানার স্বামী আবু বকর

rezwan
সমাজের কথা ডেস্ক॥ বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) নির্বাহী পরিচালক সৈয়দা রিজওয়ানা হাসানের অপহৃত স্বামী আবু বকর সিদ্দিককে খুঁজে পেয়েছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার দিবাগত মধ্যরাতে রাজধানীর কলাবাগান বাসস্ট্যান্ডে স্থাপিত চেকপোস্টে একটি সিএনজি অটোরিকশায় তাকে খুঁজে পায় পুলিশ।

ধানমন্ডি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) তসলিম জানান, আবু বকর সিদ্দিক এখন ধানমন্ডি থানায় রয়েছেন। রাত পৌনে দুইটায় চেকপোস্টে বসানো একটি সিএনজি অটোরিকশায় তাকে পাওয়া যায়।

বুধবার বেলা আড়াইটার দিকে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের ভূঁইয়া ফিলিং স্টেশনের সামনে থেকে একদল দুর্বৃত্ত অস্ত্রের মুখে আবু বকরকে অপহরণ করে। রিজওয়ানা হাসান এ ঘটনায় ফতুল্লা মডেল থানায় মামলা করেন।

পুলিশ বাংলানিউজকে জানায়, চেকপোস্টে তল্লাশির জন্য থামানো একটি সিএনজি অটোরিকশার ভেতর আবু বকরকে দেখতে পান তারা। এ সময় আবু বকরের সঙ্গে আর কেউ ছিলেন না। পরে পরিচয় পেয়ে তাকে ধানমন্ডি থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।

এদিকে খবর পেয়ে থানায় উপস্থিত হন রিজওয়ানা হাসান। দ্র্র্রুততম সময়ের মধ্যে স্বামী উদ্ধার হওয়ায় তিনি পুলিশ, সংবাদমাধ্যম এবং প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিক সদিচ্ছার কারণেই এত দ্রুত তাকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে।

তবে কে বা কারা এ অপহরণের ঘটনা ঘটিয়েছিলো তা এখনও রহস্যাবৃত। পুলিশও এ ব্যাপারে তেমন কিছু জানাতে পারেনি।

এদিকে আবু বকরকে বহনকারী সিএনজি অটোরিকশা ড্রাইভার হাফিজুর রহমান বলেন, রাত পৌনে একটার সময় মিরপুর কাজীপাড়া থেকে তিনি আবু বকরকে তার অটোরিকশায় ওঠান। রিকশা করে ১০ নম্বরের দিক থেকে আসছিলেন তিনি।

অটোরিকশা থামিয়ে এ সময় আবু বকর বলেন, ‘আমাকে সেন্ট্রাল রোডে নিয়ে যান। আমাকে অপহরণ করা হয়েছিলো।’

কলাবাগান চেকপোস্টে কর্তব্যরত সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) বাবুল রহমান বাংলানিউজকে বলেন, রাস্তায় যানবাহন তল্লাশি চালানোর সময় তারা সিএনজি অটোরিকশাটিকে থামান। যাত্রীর পরনে ছেড়া জামা দেখে তিনি তার পরিচয় জিজ্ঞাসা করেন। এ সময় আবু বকর তার অপহরণের বিষয়টি পুলিশকে খুলে বলেন। এএসআই বাবুলও তাকে শনাক্ত করতে পারেন।
পরে ধানমন্ডি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) অশোক চৌহান ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তাকে থানায় নিয়ে যান।
পরে তাকে নারায়ণগঞ্জ পুলিশের হেফাজতে তাকে তুলে দেয়া হয়। শুক্রবার দুপুরে নারায়নগঞ্জের আদালতে জবানবন্দী দেন তিনি তিনি।

এদিকে উদ্ধারের খবর পেয়েই ধানমন্ডি থানায় উপস্থিত হন পুলিশের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা, সংবাদমাধ্যম কর্মী ও তার পরিবারের সদস্যরা।

এ ব্যাপারে আবু বকর জানান, রাতে মিরপুর আনসার ক্যাম্প এলাকায় চোখ বাঁধা অবস্থায় তাকে গাড়ি থেকে নামিয়ে দেয়া হয়। এ সময় তাকে তিনশ’ টাকাও দেয় অপহরণকারীরা। পরে তিনি একটি রিকশা নিয়ে সেন্ট্রাল রোডস্থ বাড়ির দিকে রওয়ানা হন। পথে কাজীপাড়ায় ওই সিএনজি অটোরিকশায় চড়েন তিনি।

শেয়ার