নিখোঁজ উড়োজাহাজ উদ্ধারে তৎপরতা বৃদ্ধি চীনের

planebg
সমাজের কথা ডেস্ক॥ নিখোঁজ মালয়েশীয় এমএইচ৩৭০ উড়োজাহাজ উদ্ধারে তৎপরতা আরও জোরদার করেছে চীন। এরই অংশ হিসেবে আন্তর্জাতিক উদ্ধার অভিযানে যোগ দিতে অস্ট্রেলিয়ার পার্থে দু’টি সামরিক উড়োজাহাজ পাঠিয়েছে চীন।
উড়োজাহাজ দু’টি মালয়েশিয়া থেকে রওনা হবে এবং পুনরায় উত্তরে অনুসন্ধান কাজে অংশ নেবে।
ইতোমধ্যে ছয়টি উড়োজাহাজ পার্থে অভিযান চালালেও এখন পর্যন্ত কোনো ‘ধ্বংসাবশেষ’র প্রমাণ পায়নি বলে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে।
শনিবার বিকেলে দক্ষিণ ভারত মহাসাগরে নিখোঁজ মালয়েশীয় উড়োজাহাজের ‘ধ্বংসাবশেষের চিহ্ন’ পাওয়ার দাবি করে চীন।
দেশটির পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, তাদের উপগ্রহে (স্যাটেলাইট) নতুন করে ধরা পড়া চিত্র নিখোঁজ উড়োজাহাজের ‘ধ্বংসাবশেষ’র কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।
যদিও তাদের এ দাবির পর আরও একটি নিষ্ফলা দিন অতিবাহিত করলে উদ্ধারকারীরা।
এর আগে, দক্ষিণ ভারত মহাসাগরেরই অস্ট্রেলিয়ার পার্থ উপকূলে উপগ্রহ চিত্রে ধরা পড়া দু’টি বস্তু মালয়েশীয় উড়োজাহাজের ‘ধ্বংসাবশেষ’ বলে অনুমান করা হলেও অনুসন্ধানে সেটি সঠিক প্রমাণিত হয়নি।
৮ মার্চ উড্ডয়নের ঘণ্টাখানেকের মধ্যে উধাও হওয়া মালয়েশীয় উড়োজাহাজের সন্ধান শনিবার পর্যন্ত মেলেনি। ২৬ দেশের সন্ধান অভিযান গড়িয়েছে তিন সপ্তাহে, দিন যত যাচ্ছে হতাশা তত বাড়ছে।
সবশেষ উদ্ধার অভিযান চলছে ভারত মহাসাগরের পশ্চিমা অস্ট্রেলিয়ার বৃহত্তম শহর পার্থের উপকূলে। দু’দিন আগে উপগ্রহে পার্থ থেকে ২৫০০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে ভারত মহাসাগরে ভাসমান দু’টি বস্তু শনাক্ত করা গেছে। কিন্তু ওই বস্তু দু’টি নিখোঁজ উড়োজাহাজের বিধ্বস্তের ধ্বংসাবশেষ কিনা সেটি নিশ্চিত হওয়া যায়নি।
নিখোঁজ হওয়ার পর একে একে ২৬টি দেশে সন্ধান অভিযানে নেমেছে। প্রথমে দক্ষিণ চীন সাগরের ভিয়েতনাম উপকূলে ২৩৯ আরোহীবাহী এমএইচ ৩৭০ ফ্লাইটি বিধ্বস্তের খবর পাওয়া গেলেও এর কোনো প্রমাণ মেলেনি।
তারপর দক্ষিণ চীন সাগরে উপগ্রহ চিত্রে সম্ভাব্য ধ্বংসাবশেষের বস্তু শনাক্ত করা গেছে বলে দাবি করে চীন। এ দাবির পক্ষেও সত্যতা উপস্থাপন করা যায়নি।
এরপর রাডারের তথ্য বিশ্লেষণ করে মালয়েশীয় কর্তৃপক্ষ ও যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষজ্ঞেরা জানতে পারেন, কুয়ালালামপুর থেকে বেইজিংগামী উড়োজাহাজটি উদ্দেশ্যেপ্রণোদিতভাবে গতিপথ পরিবর্তন করেছে। আর রাডার থেকে হারিয়ে যাওয়ার পরও ৪ থেকে ৫ ঘণ্টা আকাশে উড়েছে।
গতিপথ পরিবর্তনের বিষয়টি সামনে আসার পর সন্ধান অভিযান চালানো শুরু হয় মালাক্কা প্রণালীতে। বলা হয়, মালয়েশীয় উপকূলের মালাক্কা প্রণালী থেকে হয়তোবা উত্তরাঞ্চল নতুবা দক্ষিণাঞ্চলে গেছে উড়োজাহাজটি।
এরপর মধ্য এশিয়ার কাজাখস্তান ও তুর্কমেনিস্তান থেকে থাইল্যান্ডের উত্তরাঞ্চল এবং ইন্দোনেশিয়া থেকে ভারত মহাসাগর রুটের দিকে নজর রেখে সন্ধান অভিযান চালানো হয়।
নিখোঁজ হওয়ার পর বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে এ নিয়ে বিভিন্ন রকম সম্ভাবনার কথা প্রকাশ করে।
যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক একটি রেডিও জানায়, বাংলাদেশের ৯টি স্থানসহ বিশ্বের ২৬টি দেশের ৯৩৪টি স্থানে উড়োজাহাজটি অবতরণের সম্ভাবনা থেকে থাকতে পারে।

শেয়ার