হংকং বাধা টপকে চূড়ান্তপর্ব মাতাবে বাংলাদেশ

sakib
সমাজের কথা ডেস্ক॥
বাংলাদেশ দলের শেষ দুই ম্যাচে সিঙ্গেল নিয়ে জেতার সুযোগ ছিল। কিন্তু ক্রিজে থাকা ব্যাটসম্যানরা যেন ছক্কা হাঁকানোর ভালো প্রস্তুতি হিসাবে নিলেন। এক রান দরকার বাংলাদেশ দলের। সিঙ্গেল নেওয়ার সুযোগ এল। সাকিবের তাতে সায় নেই। পরের বলে মিড অন দিয়ে সীমানা ছাড়া করে নিজের জাত চেনালেন। সাকিবের জাত সবার চেনা। নেপাল দলের চেষ্টার কোনো কমতি চোখে না পড়লেও উপরের কথাগুলো কিন্তু বাংলাদেশ দলের এখন চেনা দৃশ্য বলতে পারেন।কারণ টি-টোয়েন্টির এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ দলের বড় বাধা ছিল আফগানিস্তান। সে ম্যাচেও এনামুল হক ছক্কা হাঁকিয়ে আকাশে উড়েছিলেন। সাথে আকাশ বাতাসের নানা শঙ্কা দূরে ঠেলে চূড়ান্তপর্বের স্বপ্ন আকলেন জোরেশোরে।আফগানিস্তানের সাথে ৭২ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে এক উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ দলের সংগ্রহ ৭৮। এর ঠিক পরের ম্যাচে নেপালের সাথে মুশফিকদের লক্ষ্য ১২৭ কিন্তু দুই উইকেটে সংগ্রহ ১৩২। কোনো রানের বাধাই যেন কিছু নয়, খেলার চিত্র দেখলে তা অনুমেয়ই। বাংলাদেশ দলের প্রস্তুতি ম্যাচে জয় এখন আবার পরাপর দুই ম্যাচে বড় ব্যবধানের জয়। চূড়ান্তপর্বে ভালো কিছু করার ইঙ্গিত দিচ্ছে।প্রথমপর্বে শেষ বাধার নাম হংকং। ক্রিকেটের সাথে বহু পরানো সম্পর্ক সেই ১৮৬৬ সালে। কিন্তু এখনও আইসিসির সহযোগী হিসাবে খেলছে। ২০০৪ সালের এশিয়া কাপে শ্রীলঙ্কায় বাংলাদেশের সাথে প্রথম সাক্ষ্যৎ। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় হংকং যখন বাংলাদেশ দলের সাথে খেলতে নামছে তখন চূড়ান্তপর্ব একপ্রকার নিশ্চিত। আর হংকংয়ের জন্য নিয়ম রক্ষার। হংকং যেখানে সবার আগে বাড়ির পথ ধরেছে। ঠিক উল্টো চিত্র বাংলাদেশ শিবিরে। পর পর দুই ম্যাচ জিতে সুপার টেনে খেলার টিকিট অনেকটাই বাগিয়ে নিয়েছে মুশফিক বাহিনী।শতভাগ সাফল্য নিয়ে দ্বিতীয়পর্বে যেতে চায় মুশফিক বাহিনী। হংকংকে কোনো বাধাই মনে করছে না তারা। ম্যাচের আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে এমনটিই জানিয়েছেন এনামুল হক বিজয়। হংকংকে হারিয়ে পূর্ণ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে পা রাখার ইচ্ছার কথা ব্যক্ত করেছেন জাতীয় দলের এ ওপেনার। শ্রীলঙ্কা সিরিজ এবং এশিয়া কাপে ব্যর্থতা অনেকটাই ভুলিয়ে দিয়েছে টি-২০ বিশ্বকাপ। বুধবার আফগানিস্থানের সাথে হংকংয়ের ম্যাচ বাংলাদেশ দল মাঠে বসে দেখলেও তেমন কোনো ধারণা নেই। তবে ওদের বেশি পেসার এটা খেয়াল করলেও এখন ভিডিও এনালাইসিস করে ওদেরকে চিনে নেবে।বাংলাদেশ টিমের সবাই বেশ ফুরফুরে মেজাজে আছে এমটা ম্যাচের আগে শেষ অনুশীলন দেখলেই বুঝা যায়। শুরুতে ফুটবল খেলে শরীর গরম করে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে ছোট্ট বৈঠক সারল বাংলাদেশ দল। নেটে ব্যাটিং শুরু ছক্কা হকানোর পালা পাল্লা দিয়ে। মুশফিক আর তামিম নেট কাপালো। মাঠের আরেক পাশের নেটে নাসিরের আলাদা অনুশীলন কিন্তু তার রানে ফেরার নতুন উঙ্গিত দিচ্ছে। এই সময়ে এক পশলা বৃষ্টি অনুশীলনে ব্যাঘাত ঘটালো। সবাইকে দেখে বেশ সিরিয়াস মনে হল। হতে পারে হংকং ছোট দল কিন্তু এই দলের যে হারানোর যে কিছু নেই তা বেশ ভালোই জানা মুশফিক বাহিনীর।প্রথমবার টি-২০ বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে বারাকাত, আইজাজ খান ও চ্যাপম্যানদের দল। ইতিমধ্যে দুটি ম্যাচ খেললেও নেপাল এবং আফগানিস্তানের বিপক্ষে বড় ব্যবধানের হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে। বিশ্বকাপের প্রথমপর্বে সবার আগে বিদায় নিয়েছে চার্লি বুকারের শিষ্যরা । বৃহস্পতিবার বাংলাদেশের সাথে একদশে পরিবর্তন আনতে পারে হংকং। ওপেনিংয়ে নতুন কোনো খেলোয়াড়কে দেখা যেতে পারে। ফিল্ডিং নিয়ে বাড়তি পরিকল্পনা রয়েছে। কারণ তারা এই আসরে বেশ কিছু ক্যাচ ছেড়েছে। তবে কোচ টিমের প্রতি আস্থা হারাচ্ছেন না। শেষটা ভালো করলে খারপ হয় না।

শেয়ার