খালেদা জিয়া জঙ্গিবাদকে উস্কে দিচ্ছেন : তথ্যমন্ত্রী

inu
সমাজের কথা ডেস্ক॥ তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, খালেদা জিয়া জঙ্গিবাদকে উসকে দিচ্ছেন। গত ১ মার্চ রাজবাড়িতে বিএনপি আয়োজিত জনসভায় খালেদা জিয়ার বক্তব্যই তার প্রমাণ।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।
মন্ত্রী বলেন, গত পহেলা মার্চ রাজবাড়ীতে এক জনসভায় বিএনপি নেত্রী মিথ্যাচার করেছেন। বেগম জিয়া মুখে নির্দলীয় নির্বাচনকালীন সরকারের কথা বললেও তার নির্দিষ্ট কোনো রুপরেখা দিতে ব্যর্থ হয়েছেন। তারপরও সরকারের সর্বদলীয় সরকার ব্যাবস্থার পাশাপাশি পরবর্তী নির্বাচনকালীন সরকারের বিষয়ে আলোচনার পথ আমরা সবসময় খোলা রেখেছি।
রাজবাড়ীর জনসভায় খালেদা জিয়া সংখ্যালঘু নির্যাতনের জন্য বর্তমান সরকারকে দায়ী করেছেন। ইনু বলেন, বিএনপি জামায়াত চক্রই সাম্প্রদায়িক এই হামলা সমূহের হোতা। খালেদা জিয়ার স্বভাবসুলভ মিথ্যাচারে এই সত্যের কোন পরিবর্তন হবে না।
খালেদা জিয়া ওই জনসভায় ‘জঙ্গি জঙ্গি’ শব্দের মাধ্যমে জঙ্গিবাদকে উস্কে দিয়েছেন বলে অভিযোগ মন্ত্রীর।
খালেদা তার বক্তব্যে নির্বাচনের পূর্বে সারা দেশ থেকে ঢাকাকে বিচ্ছিন্নের অভিযোগ তুলেছেন সরকারের বিরুদ্ধে।
মন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়া তার এ বক্তব্যের মাধ্যমে চলন্ত বাসে পেট্রোল বোমা ছুঁড়ে মানুষ হত্যা, রেললাইনের ফিশ প্লেট খুলে নিরীহ যাত্রীদের হত্যা, দাঁড়িয়ে থাকা বাসে-ট্রাকে-টেম্পুতে অগ্নিসংযোগসহ জনগণের সম্পত্তি লুণ্ঠন এবং অসংখ্য বৃক্ষ নিধন করে পরিবেশকে হুমকির মুখে ফেলাকে প্রকাশ্য সমর্থন করলেন। আন্দোলনের নামে এই নাশকতা ও জঙ্গিবাদকে ভবিষ্যতের জন্য উস্কে দিলেন।
ইনু আরও বলেন, বেগম খালেদা জিয়া পিলখানায় ৫৭ জনসহ ৭০ জন সেনা কর্মকর্তাকে হত্যা এবং ২৫ অক্টোবর থেকে পরবর্তী তিনমাসে ৩০৪ জনকে হত্যার অভিযোগ করেছেন। এছাড়াও ৬৫ জনেরও বেশি গুম এবং বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে ৩২ হাজার মামলা রয়েছে বলে মিথ্যাচার করেছেন।
ইনু বলেন, খালেদা জিয়াকে এ সংখ্যার সত্যতা নিশ্চিত করতে হবে। কোথায়, কোন বিএনপি নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে এবং তার পদ কি সেটি জানাতে খালেদা জিয়াকে বলেন তিনি।
এ জন্য খালেদা জিয়াকে এক মাসের সময়ও দেন ইনু। এছাড়াও খালেদা জিয়ার কাছে কথিত ৩০৪ ও ৬৫ জনের নাম ও ঠিকানা দাবি করেন তিনি।

শেয়ার