মন্ত্রিসভার বৈঠকে থাকছেন না উপদেষ্টারা

Cabinet meeting
বাংলানিউজ ॥
বর্তমান সরকারের মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টারা থাকছেন না। এছাড়া থাকছেন না প্রতিমন্ত্রীরাও। বৈঠকে শুধুমাত্র দলের শীর্ষ মন্ত্রী এবং এজেন্ডাভিত্তিক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীদের রাখা হচ্ছে।
এতে মন্ত্রিসভাসহ সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে উপদেষ্টাদের ক্ষমতা কমছে বলেই মনে করছেন অনেকে।
সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে উপস্থিত একজন মন্ত্রী জানান, বর্তমান সরকার গঠনের পর এ পর্যন্ত মন্ত্রিসভার চারটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৈঠকে একটি বড় পরিবর্তন এসেছে। তা হলো- মন্ত্রিসভার বৈঠকে আগের মতো প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টারা থাকছেন না।
এছাড়া প্রতিমন্ত্রীরাও বৈঠকে থাকছেন না। শুধুমাত্র শীর্ষ মন্ত্রী এবং এজেন্ডাভিত্তিক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীদের রাখা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।
তবে প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছার ওপর নির্ভর করে উপদেষ্টা ও প্রতিমন্ত্রীদের বৈঠকে ডাকা হতে পারে বলে জানান তিনি।
নবম জাতীয় সংসদে মন্ত্রীদের চেয়েও ক্ষমতায় এবং প্রচারণায় কয়েকজন উপদেষ্টা ছাড়িয়ে গিয়েছিলেন। এছাড়া উপদেষ্টাদের মধ্যে দুর্নীতিও ছড়িয়ে পড়েছিল। মন্ত্রী- উপদেষ্টাদের ক্ষমতার দ্বন্দ্ব ছিল বেশ আলোচিত বিষয়।
এ কারণেই সরকারের নতুন মন্ত্রিসভা এবং সিদ্ধান্ত পর্যায়ে উপদেষ্টাদের ক্ষমতার লাগাম টানা হচ্ছে বলে মনে করছেন মন্ত্রীদের অনেকেই।
গত ১২ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর আগের ছয় উপদেষ্টাকে অব্যাহতি দিয়ে নতুন চারজনকে আবারও প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। নতুন উপদেষ্টাদের মধ্যে রয়েছেন- রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম, অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান, পররাষ্ট্র উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী ও সামরিক উপদেষ্টা তারিক আহমেদ সিদ্দিকী।
সর্বশেষ ২৬ জানুয়ারি বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ উপদেষ্টা হিসেবে তৌফিক এলাহিকে নিয়োগ দেওয়া হয়।
দায়িত্ব পালনকালে উপদেষ্টারা মন্ত্রী পদমর্যাদার সুযোগ-সুবিধা ভোগ করেন।
এর আগে মহাজোট সরকারের প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা ছিলেন ৯ জন। তবে নির্বাচনকালীন সরকারে উপদেষ্টা ছিলেন ছয়জন।
বর্তমান সরকারের ৫ জন উপদেষ্টা ও ১৭ জন প্রতিমন্ত্রী রয়েছেন।

SHARE