সংলাপ বেগবান হয়েছে: আশরাফ

Sayd Ashraf
সমাজের কথা ডেস্ক॥ শপথ নিতে সস্ত্রীক বঙ্গভবনে ঢুকছেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। নির্বাচন নিয়ে বিএনপির সঙ্গে সংলাপ ‘বন্ধ’ হয়নি জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলছেন, তা আরো ‘বেগবান’ হয়েছে।
অবশ্য সংলাপের সাফল্যের ক্ষেত্রে ‘বাইরের শক্তিও’ যে গুরুত্বপূর্ণ- প্রকাশ্যেই তা স্বীকার করেছেন টানা দ্বিতীয় মেয়াদে স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর দায়িত্ব নেয়া আশরাফ।
সোমবার সচিবালয়ে নিজের দপ্তরে এসে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে এক মতবিনিময় অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, এই সরকারের মেয়াদ পাঁচ বছর। এর থেকে এক দিনে বেশিও সরকার ক্ষমতায় থাকবে না।
“রাজনীতি নিয়ে আলাপ-আলোচনা সব সময় চলে, এখনো চলছে এবং ভবিষ্যতেও চলবে। আলোচনার দ্বার বন্ধ হলে সমস্যা হয়।”
বিএনপির সঙ্গে প্রতিটি রাজনৈতিক সংলাপেই ভূমিকা ছিল জানিয়ে আশরাফ আশা প্রকাশ করেন, “বিএনপি সংলাপে আসবে এবং এর মধ্য দিয়ে রাজনৈতিক সমঝোতা হওয়া সম্ভব।”
নির্দলীয় সরকারের দাবিতে আন্দোলনরত বিএনপি ভোট বর্জনের ঘোষণা দেয়ার পর দেশজুড়ে সহিংসতার মধ্যে গত ডিসেম্বরে জাতিসংঘের সহকারী মহাসচিব অস্কার ফার্নান্দেজ-তারানকোর মধ্যস্থতায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সঙ্গে তাদের সংলাপ শুরু হয়।
তবে তাতে সমঝোতা না হওয়ায় গত ৫ জানুয়ারি ভোট হয় বিএনপি ও শরিকদের ছাড়াই। তাতে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েই এবার সরকার গঠন করল আওয়ামী লীগ।
আশরাফ বলেন, জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ দূতের উদ্যোগে পরপর তিন দিন দীর্ঘক্ষণ আলোচনার পর তারা ‘সাফল্যের একদম কাছাকাছি’ পৌঁছে গিয়েছিলেন।
“তবে নোগেসিয়েশনকারীদের ইচ্ছেই সব নয়। বাইরের শক্তিও আছে।”
‘আওয়ামী লীগ-বিএনপি একত্র হলে আলোচনা সফল হবে’- এমন প্রত্যাশা জানিয়ে আশরাফ বলেন, “মন্ত্রীর দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি রাজনৈতিক সংলাপও চলবে। আলোচনা থামে নাই। বন্ধও হয় নাই। আলোচনা আরো বেগবান হচ্ছে।”
হাসতে হাসতে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “মিডিয়ার সামনে আলোচনা হয়নি বলে আপনারা দেখতে পারেননি।”
বিএনপির নির্বাচন বর্জনের সমালোচনা করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, “নির্বাচন বর্জনের কালচার স্থায়ী হয়ে গেলে সব দল মিলে জীবনে আর নির্বাচন হবে না।”

SHARE