তারানকো-রিপোর্ট বান কি মুনের হাতে॥ সংলাপে সফল, নির্বাচনে আনায় ব্যর্থ

Taranko
বাংলানিউজ ॥
‘শীর্ষ দুই দলের মধ্যে সংলাপ শুরু করাটাই মূল উদ্দ্যেশ্য’ সেদিক থেকে সফর সফল হলেও সবদলের নির্বাচনে অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে উদ্যোগের ব্যর্থতা রয়েছে।’ এমনটাই বলেছেন জাতিসংঘের সহকারী মহাসচিব অস্কার ফার্নান্দেস তারানকো। এই ব্যর্থতার প্রধান কারণ হিসেবে তিনি সফরে সময়ের স্বল্পতার কথা উল্লেখ করেছেন।
জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুনের কাছে বাংলাদেশ সফরের ওপর দেওয়া প্রতিবেদনে এসব বলেছেন তারানকো।
গত ৬ ডিসেম্বর ঢাকা পৌঁছে ১১ ডিসেম্বর পর্যন্ত অবস্থান করেন অস্কার ফার্নান্দেস তারানকো। তিনি এসময় অত্যন্ত ব্যস্ত সময় কাটান এবং প্রধানমন্ত্রী, বিরোধী দলীয় নেতাসহ রাজনৈতিক দল ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেন। সফরের শেষ দিনে দুই প্রধান দলের প্রতিনিধিদের নিয়ে একটি সংলাপের প্রক্রিয়াও শুরু করেন জাতিসংঘের এই বিশেষ দূত।
জাতিসংঘের দায়িত্বশীল একটি সূত্র বাংলানিউজকে জানিয়েছে, অস্কার ফার্নান্দেস তারানকো মহাসচিব বান কি মুনের কাছে নিয়মানুযায়ী তার ‘খসড়া’ প্রতিবেদনটি দাখিল করেছেন। প্রতিবেদনটি নিরাপত্তা পরিষদে উপস্থাপনের লক্ষ্যে চূড়ান্তকরণের কাজ চলছে।
জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুনের মুখপাত্র ফারহান হক এ ব্যাপারে বাংলানিউজকে বলেন, “মি. তারানকো তার সফরে যা দেখেছেন, তা-ই প্রতিবেদনে দাখিল করেছেন। এর বেশি কিছু মন্তব্য করার নেই।”
তারানকোর প্রতিবেদন নিয়ে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের কি ভূমিকা থাকতে পারে এ নিয়ে বাংলানিউজের কথা হয় জাতিসংঘের পর্যবেক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী সাবেক কূটনীতিক আব্দুর রাজ্জাকের সঙ্গে। তিনি জানান, এই প্রতিবেদন নিরাপত্তা পরিষদে যাওয়ার বিষয়টি নির্ভর করবে সম্পূর্ণভাবে মহাসচিবের বিবেচনার ওপর।
এদিকে, জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ড. একে আবদুল মোমেন বাংলানিউজকে বলেন, তার সাথে আলাপে অস্কার ফার্নান্দেস তারানকো তার বাংলাদেশ সফরেরব ব্যাপারে সন্তোষ প্রকাশ করে বলেছেন, তিনি মনে করেন এখনো সঙ্কট নিরসনের সম্ভাবনা ও পথ উন্মুক্ত রয়েছে।
ড. মোমেন বলেন, বাংলাদেশে সাংবিধানিক ধারাবাহিকতা রক্ষায় সরকারকে নির্বাচন করতেই হবে। সে-কারণে ৫ জানুয়ারি নির্বাচন হচ্ছেই এ ব্যাপারে বিষয়ে তারানকো কনভিন্সড।
ড. মোমেনের ভাষ্যে, মি: তারানকো মনে করছেন বাংলাদেশের জনগণই ভালো মন্দ নির্ধারণ করবে, এব্যাপারে মন্তব্য করার তার ম্যান্ডেট নেই। তবে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ যদি মনে করে ,তাহলে তারা এব্যপারে পদক্ষেপ নিতেই পারে।
বাংলাদেশে নির্বাচন কমিশনের সার্বিক কর্মকাণ্ডে তারানকো খুবই খুশি বলেও জানান জাতিসংঘে বাংলাদেশের এই স্থায়ী প্রতিনিধি।
তিনি আরও জানান, অস্কার ফার্নান্দেস তারানকোর উর্ধ্বতন কমকর্তা জেফরি ফেল্টম্যানের সাথেও তার কথা হয়েছে। জেফরি ফেল্টম্যান তারানকোর বাংলাদেশ সফর নিয়ে তার মন্তব্যে বলেছেন, “মি. তারানকো এখন বাংলাদেশের হিরো।”
অস্কার ফার্ন্দান্দেস তারানকোকে অত্যন্ত স্বল্পভাষী উল্লেখ করে রাষ্টদূত ড. একে আবদুল মোমেন বলেন, আলাপচারিতায় মি. তারানকো স্বল্প কথাতে বাংলাদেশের সঙ্কট নিরসনে সরকারের সদিচ্ছার কথা যেমন বলেছেন, তেমনি প্রধান দুই নেত্রীর সহযোগিতারও প্রশংসা করেছেন।

শেয়ার