সেনা নামছে ২৬ ডিসেম্বর মাঠে থাকবে ১৫দিন

Decembe
বাংলানিউজ ॥
আসন্ন দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে ২৬ ডিসেম্বর থেকে ৯ জানুয়ারি পর্যন্ত সারা দেশে সেনাবাহিনী মোতায়েন থাকবে।
প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ শুক্রবার সন্ধ্যায় নির্বাচন সংক্রান্ত আইনশৃঙ্খলা কমিটির বৈঠক শেষে সাংবাদিক এ কথা জানান।
তিনি বলেন, ‘সশস্ত্র বাহিনী ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে ম্যাজিস্ট্রেট থাকবে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ম্যাজিস্ট্রেটদের একটি তালিকা তৈরি করছে বলে আমাদের জানিয়েছে। খুব শিগগিরই তা আমাদের হাতে আসবে।’
‘কত জন সেনা মোতায়েন হচ্ছে?’ এ প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, ‘এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তা একটি চাহিদাপত্র তৈরি করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে দেবেন। সেই মোতাবেক স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সংখ্যা নির্ধারণ করবে।’
তবে নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, প্রতিটি জেলায় কমপক্ষে এক ব্যাটেলিয়ন সেনা মোতায়েন করা হবে। সেই হিসেবে মোতায়েনকৃত সেনার সংখ্যা হবে ৫০ হাজারেরও বেশি।
সিইসি বলেন, ‘নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এরই মধ্যে অস্ত্র উদ্ধারের কাজ শুরু হয়েছে। শিগগিরই সারা দেশে এ অভিযান পরিচালিত হবে। কোনো প্রার্থীর প্রচারণায় যেতে সমস্যা হলে রিটার্নিং কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করবেন।’
এ সময় সিইসি আশা প্রকাশ করে বলেন, ‘আমরা চেয়েছিলাম সবাই নির্বাচনে আসবে। সব দলের অংশগ্রহণে নির্বাচন হবে। এখন যে পরিস্থিতি, তাতে শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বলেই আমি আশা করছি।‘
নির্বাচনে ইউরোপীয় ইউনিয়নের পর্যবেক্ষক পাঠানোর বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমি জানি না তারা কোনো প্রেক্ষাপটে সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন। তবে আশা করছি সবাই নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করবে।’
উল্লেখ্য, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে আইন-শৃঙ্খলা ব্যবস্থা ও নির্বাচন পরিচালনার বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করতে শুক্রবার দুপুরের পর শেরে বাংলা নগরস্থ পরিকল্পনা কমিশন চত্বরের এনইসি অডিটোরিয়ামে বৈঠকে বসে নির্বাচন কমিশন।
প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে বৈঠকে নির্বাচন কমিশনার মোহাম্মদ আবু হাফিজ, মোহাম্মদ আবদুল মোবারক, শাহ নেওয়াজ ও ব্রিগেডিয়ার(অব.) জাবেদ আলীর সঙ্গে এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার (পিএসও) লে. জেনারেল আবু বেলাল মুহাম্মদ শফিউল হক, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব সি.কিউ মোস্তাক আহমেদ, মহাপুলিশ পরিদর্শক হাসান মাহমুদ খন্দকার, বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) মহা-পরিচালক মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ ও ডিএমপি কমিশনার বেনজীর আহমদ।
এছাড়া সশস্ত্রবাহিনীসহ বিভিন্ন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী এবং বিভিন্ন বিভাগের কমিশনার সহ পুলিশ সুপার, আনসার ও ভিডিপি, কোস্ট গার্ড, জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই), অতিরিক্ত মহাপুলিশ পরিদর্শক, স্পেশাল ব্রাঞ্চ(এসবি), ডিজিএফআই, র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ান (র‌্যাব) এর ঊর্ধতন কর্মকর্তারাও বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।
বৈঠকে অংশ নেন ৬১ জন রিটার্নিং অফিসার (০২ জন বিভাগীয় কমিশনার এবং ৫৯ জন জেলা প্রশাসক) এবং ৫৭৭ জন সহকারী রিটার্নিং অফিসার (উপজেলা নির্বাহী অফিসার ৪৮৭ জন এবং অন্যান্য কর্মকর্তাগণ ৯০ জন)। ৫টি জেলায় নির্বাচন না থাকায় সেখানকার জেলা প্রশাসকরা বৈঠকে অংশ নেননি।
শুক্রবার বিকেল সাড়ে তিনটায় শুরু হয়ে এ বৈঠক শেষ হয় সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায়।
বিরতিসহ প্রায় ৩ ঘণ্টাব্যাপী বৈঠকে জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নির্বাচন পরিচালনা ও আইন-শৃঙ্খলার বিষয়ে বিশদ আলোচনা হয়।

শেয়ার