কালিগঞ্জে আ’লীগ নেতা মোসলেম আলীর দাফন॥ ক্ষুব্ধ জনতার সাথে জামায়াত-শিবিরের সংঘর্ষ॥ বাড়ি ও দোকানে আগুন

কালিগঞ্জ (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি॥ জামায়াত শিবিরের হামলায় নিহত কালিগঞ্জ উপজেলার বিষ্ণুপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোসলেম আলীর লাশ গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর দু’টায় চাঁচাই ফুটবল মাঠে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।
জানাজায় অংশ নেন কালিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ ওহেদুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক খান আসাদুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এনামুল হোসেন ছোট, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারেক, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শেখ নাসিরউদ্দিন,আওয়ামী লীগ নেতা সদরউদ্দিন,মহাতাবউদ্দিন,যুবলীগ নেতা সাঈদ মেহেদী, ডিএম সিরাজুল ইসলাম প্রমুখ। জানাজা শুরুর আগে তারা উপস্থিত সকলের উদ্দেশ্যে বলেন,গত মঙ্গলবার মোসলেম আলীকে জামায়াত শিবিরের দুর্বৃত্তরা নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা করেছে। এ ঘটার সঙ্গে জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। এ সময় সাবেক স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ডাঃ আ.ফ.ম রুহুল হক মোবাইল ফোনে জানাজায় উপস্থিত সকলের উদ্দেশ্যে মোসলেম আলী নিহত হওয়ার ঘটনায় শোকে মুহ্যমান দলীয় নেতা কর্মীদের শোককে শক্তিতে পরিণত করে একতাবদ্ধ হয়ে স্বাধীনতা বিরোধী শক্তিকে প্রতিহত করার আহবান জানান।
এদিকে জানাজা শেষে ফিরে যাওয়ার সময় ক্ষুব্ধ জনতা কালিগঞ্জের বিষ্ণুপুর গ্রামের জামায়াত কর্মী আলী ঢালী, মালেক ঢালী, সামাদ ঢালী ও মাজেদ ঢালীর বাড়িঘর ভাঙচুর করে আগুনে পুড়িয়ে দিয়েছে। এরপর তারা বিষ্ণুপর বাজারের জামায়াত কর্মী হায়াত আলীর দোকান থেকে মালামাল বের করে পুড়িয়ে দেয় বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে।
এ ছাড়া জানাজা শেষে ফিরে যাওয়ার সময় উপজেলার গোবিন্দপুর গ্রামে আওয়ামী লীগ কর্মীদের উপর হামলা চালায় জামায়াত নেতা কর্মীরা। এ সময় কলিযোগা গ্রামের নূর ইসলামকে অপহরণ করে মারপিটের পর আটক করে জামায়াত শিবিরের কর্মীরা। এ সময় পাল্টা হামলায় আহত হয় গোবিন্দপুর গ্রামের শিবির কর্মী ইসমাইল হোসেন (১৩)। নূর ইসলামকে মুক্ত করতে ক্ষুব্ধ গ্রামবাসী মোবারক হোসেন ও মিজানুর রহমান নামের দু’ জামায়াত কর্মীর বাড়িতে আগুণ ধরিয়ে দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

শেয়ার