পাকিস্তান সংসদের শোক প্রস্তাবে তীব্র নিন্দা প্রধানমন্ত্রীর

hasina
বাংলানিউজ ॥
কাদের মোল্লার ফাঁসির প্রতিবাদে পাকিস্তানের সংসদে নেওয়া শোক প্রস্তাবের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গণভবনে ১৪ দলের এক যৌথ সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ নিন্দা জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি নেত্রীর মুখোশ আজ বাংলাদেশের মানুষের কাছে উন্মোচিত হয়ে গেছে। খালেদা জিয়া এবং গোলাম আযম গং-এ যারা আছে তারাই পাকিস্তানের দোসর হিসেবে অতীতে কাজ করেছে, এখনও কাজ করছে।

পাকিস্তান যখন কাদের মোল্লার ফাঁসির বিরুদ্ধে পার্লামেন্টে শোক প্রস্তাব আনে তখনই তাদের চেহারা মানুষের কাছে পরিষ্কার হয়ে যায়।

পাকিস্তানের দালালদের ঠাঁই বাংলাদেশের মাটিতে হবে না, ঘোষণা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপিনেত্রীর মুখোশ আজ দেশের মানুষের কাছে উন্মোচিত হয়ে গেল। আমরা ক্ষমতায় এসে প্রতিটি ক্ষেত্রে উন্নয়ন করি। আর বিএনপি সব অর্জন নস্যাৎ করে দেয়। আমরা বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়াই আর তারা এসে কমায়।

বিএনপি ক্ষমতায় এলেই লুটপাট, জঙ্গিবাদ, দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়। আমি দেশবাসীকে শান্ত থাকার অনুরোধ জানাচ্ছি। তারা যে হত্যা, তাণ্ডব চালাচ্ছে এর প্রতিরোধ আমরা করবোই।

“জাতি আজ অভিশাপ মুক্ত হলো”– এ মন্তব্য করে হাসিনা বলেন, তাদের (জনগণকে) আর যুদ্ধাপরাধীদের নির্বাচনে ভোট দিতে হবে না। সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচনের প্রস্তুতি চলছে এবং সেই মোতাবেক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ভণ্ডুল করার জন্য দেওয়া হরতাল-অবরোধ জনগণ আর মানবে না। দেশবাসীকে এ ব্যাপারে আরও সচেতন থাকার আহ্বান জানচ্ছি।

পাকিস্তানি দালালদের অস্তিত্ব এদেশে আর থাকবে না। অনেক ত্যাগের বিনিময়ে আমরা স্বাধীনতা অর্জন করেছি। স্বাধীনতার সুফল সবার কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে।

চলন্ত বাসে পেট্রোলবোমা ছুড়ে মানুষকে পুড়িয়ে মারা কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজও দিনাজপুর ৬ আসনের এমপির পেট্রোল পাম্প, ট্রাক আগুনে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। ধ্বংস করা হয়েছে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান।

১৪ দলের এই যৌথসভায় শরিক সংগঠনগুলোর শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার