পাকিস্তানকে নাক গলাতে নিষেধ করলো বাংলাদেশ

Bangladesh
বাংলানিউজ ॥
মুক্তিযুদ্ধকালে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াত নেতা আব্দুল কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় কার্যকর হওয়ায় পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদে শোক প্রস্তাব পাশ হয়েছে। এঘটনায় পাকিস্তানকে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলাতে কড়া ভাষায় নিষেধ করে দিয়েছে বাংলাদেশ।
মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশে নিযুক্ত পাকিস্তানি হাই কমিশনার আফরাসিয়াব মেহেদী হাশমি কোরাইশিকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করে পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদে গৃহীত প্রস্তাবের কড়া প্রতিবাদ জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী।
এসময় কোরাইশিকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, কাদের মোল্লার ফাঁসি বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়। এ ব্যাপারে নাক গলাবেন না। নাক গলানোর সুযোগ নেই। পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদে এহেন প্রস্তাব গ্রহণ বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপের সামিল।
পাকিস্তানি হাই কমিশনারের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে মন্ত্রী বলেন, আমাদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, বাংলাদেশ আজ যে অবস্থানে এসেছে, তাতে আমরা কারও ভয়ে ভীত নই। ন্যায্য বক্তব্য আমরা দেবোই।
এ এইচ মাহমুদ আলী বলেন, পাকিস্তানসহ ফাঁসির বিরুদ্ধে যারা বক্তব্য দিচ্ছেন, তাদের যাকে যেভাবে প্রতিবাদ জানানো দরকার আমরা সেভাবেই তা জানাচ্ছি।
আমাদের বিচার প্রক্রিয়া সঠিকভাবে সঠিক সময়ে সম্পন্ন হয়েছে। যথাযথ নিয়ম মেনে তাদের আপিল ও রিভিউ আবেদন শোনা হয়েছে।
বিশ্বের অন্যান্য দেশে যেখানে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করা হচ্ছে সেখানেও আপিলের সুযোগ নেই। কিন্তু আমাদের আদালতে আসামি আপিল করার সুযোগ পেয়েছেন। শুধু তাই নয়, পুরো বিচার প্রক্রিয়া চলাকালে আসামির আত্মীয়, আইনজীবী, এমনকি যেকোনো সাধারণ নাগরিক চাইলেই বিচার প্রক্রিয়া পর্যবেক্ষণের সুযোগ পেয়েছেন- বলেন মন্ত্রী।
কাদের মোল্লার ফাঁসির সমালোচনাকারীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, এখন যারা মানবাধিকার রক্ষার কথা বলছেন, যখন বাংলাদেশের লক্ষ লক্ষ মানুষকে হত্যা করা হয়েছিল তখন তারা কোথায় ছিলেন? পঁচিশে মার্চের কালোরাতে হানাদার পাকসেনা এবং তাদের এদেশীয় দোসররা যে গণহত্যা চালিয়েছিল, মানবজাতির আধুনিক ইতিহাসে এর কাছাকাছি আর কোনো ঘটনা নেই।

শেয়ার