জামায়াত-শিবিরের সাইবার নাশকতা

Cyber
বাংলানিউজ॥
মানবতাবিরোধী অপরাধে দলের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় কার্যকর হওয়ার পর রাজপথের পাশাপাশি সাইবার জগতেও নাশকতা চালিয়ে যাচ্ছে জামায়াত-শিবির। এরই মধ্যে সরকারের দু’টি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইট হ্যাক করেছে তারা।
মুক্তিযুদ্ধের সময় ‘মিরপুরের কসাই’ খ্যাত কাদের মোল্লাকে বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে।
মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের পরপরই দেশব্যাপী নাশকতা শুরু করে জামায়াত ও তাদের সহযোগী ছাত্রসংগঠন ছাত্রশিবির। গত দু’দিনে জামায়াত-শিবিরের নাশকতায় হতাহত হয়েছে বেশকিছ মানুষ। রোববারও হরতাল ডেকেছে জামায়াত।
থেমে নেই ধর্মাশ্রয়ী এ দলটির অনলাইন অ্যাক্টিভিস্টরাও। রায় কার্যকরের পরের দিন শুক্রবার শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট হ্যাক করেছে তারা।
শুক্রবার রাত আটটার দিকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটেhttp://www.moedu.gov.bd ক্লিক করতেই পর্দায় ভেসে ওঠে কাদের মোল্লার ছবি, শোনা যায় নারীকণ্ঠের ইসলামি সংগীত।
একই দিন সন্ধ্যা সাতটার দিকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটেও-http://www.mopme.gov.bd একই কাণ্ড দেখা গেছে।
দু’টি মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটেই ক্লিক করলে কাদের মোল্লার ছবি সংবলিত একটি পেজ-http://jih4d.org চলে এসেছে, যেখান থেকে ওয়েবসাইটটি হ্যাক করা হয়।
পেজ দু’টিতে ক্লিক করার পর-http://jih4d.org শীর্ষক ওয়েবসাইট চলে এসেছে।
দু’টি ওয়েবসাইটের স্ক্রিনশট নিয়ে রাখে বাংলানিউজ। দু’টি ওয়েবসাইটেই কাদের মোল্লার সঙ্গে তুরস্কের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নেকমেত্তিন এরবাকানের ছবি সংযুক্ত ছিল।
স্বাধীন তথ্যকোষ উইকিপিডিয়া ও সার্চ ইঞ্জিন গুগলের তথ্যমতে, তুরস্কের একটি ইসলামি দলের প্রতিষ্ঠাতা এরবাকান সামরিক বাহিনী কর্তৃক ক্ষমতাচ্যুত হন ও সাংবিধানিক আদালত তার রাজনৈতিক দলটি নিষিদ্ধ ঘোষণা করে।
পেজের নিচের লিঙ্কে ক্লিক করলে টুইটারে-#Şবযধফবঃরহগহৃনধৎবশঙষংঁহগড়ষষধ এই নামে একটি পেজ আসছে।

http://jih4d.org/hack/jihad.html-এই পেজেও কাদের মোল্লাকে নিয়ে বিভিন্ন ভাষায় নানা মন্তব্য করা হয়েছে। তুর্কি ভাষায় যুক্ত হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি সংবলিত নানান উক্তি।
শুক্রবার রাত নয়টার দিকেই শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইট সচল হলেও যঃঃঢ়://লরয৪ফ.ড়ৎম/যধপশ/লরযধফ.যঃসষ-এই লিঙ্কে ক্লিক করেই দেখা যাচ্ছে হ্যাকড করা পেজের ভিউ।
এই ঘটনাকে ‘সাইবার নাশকতা’ মনে করে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, যারা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইট হ্যাক করেছে, দেশের অগ্রগতিতে অন্তরায় সৃষ্টির জন্যই তারা এ কাজ করেছে।
শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ শনিবার বাংলানিউজকে বলেন, ওই কাজটি যারা করেছিল বুঝতে হবে তাদের উদ্দেশ্য অসৎ। ওয়েবসাইট হ্যাক করার মাধ্যমে মন্ত্রণালয়ের কাজে ব্যাঘাত সৃষ্টি করে প্রকারান্তরে তারা সরকারের কাজকে বাধাগ্রস্ত করতে চায়।
ভবিষ্যতে যেন হ্যাক করার মতো ঘটনা না ঘটে সে ব্যাপারে মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্টদের প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানান শিক্ষামন্ত্রী।
ওয়েবসাইট হ্যাক করা ছাড়াও বিভিন্ন মোবাইল ফোন নম্বরে সহিংসতার উস্কানিমূলক খুদেবার্তা পাঠাচ্ছে জামায়াত-শিবির।

শেয়ার