এবার ড্রোন বিধ্বংসী লেজারের পরীক্ষা যুক্তরাষ্ট্রের!

leser
বাংলানিউজ ॥
পৃথিবীজুড়েই মানুষবিহীন বিমান (ড্রোন) দিয়ে ব্যাপক তাণ্ডব চালাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। এবার তারাই সেই ড্রোন বিধ্বংসী লেজার অস্ত্রের পরীক্ষা চালাল। নিউ মেক্সিকোর হোয়াইট স্যান্ড ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ এলাকায় মার্কিন সেনাবাহিনী প্রথমবারের মতো অত্যাধুনিক এ অস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছে।
ছয় সপ্তাহ ধরে চলা এ পরীক্ষায় সামরিক যানের ওপরে সংযুক্ত গম্বুজ আকৃতির বিশেষ যন্ত্র থেকে নিক্ষেপিত উচ্চশক্তি বিশিষ্ট এ লেজার ৯০টির মতো মর্টার বোমা ও ক্ষুদ্রাকৃতির কয়েকটি ড্রোন ধ্বংস করে ফেলে।
কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সেনাবাহিনী এ লেজার ব্যবস্থা কেনার সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগ পর্যন্ত উচ্চশক্তি বিশিষ্ট এ ভ্রাম্যমাণ পরীক্ষামূলক অস্ত্রটি (এইচইএল এমডি) ২০২২ সালের সালের আগে অভিযানে ব্যবহৃত হবে না।
তিন থেকে পাঁচটি লেজার সংযুক্ত বিশেষ যন্ত্রটি এমনভাবে নকশা করা হয়েছে যাতে এটা রিমোট নিয়ন্ত্রিত মর্টার বা ক্ষেপণাস্ত্রকে প্রতিহত করতে পারে। বিগত দশকে ইরাক ও আফগানিস্তানে হামলার সময় ক্ষেপণাস্ত্র ও মর্টারের এমন আক্রমণ করা হয়েছিল।
পরীক্ষা চালানোর সময় লেজারটি ১০ কিলোওয়াট শক্তি বিশিষ্ট ছিল, পর্যায়ক্রমে এটি ৫০ কিলোওয়াট ও ১০০ কিলোওয়াট পর্যন্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।
হোয়াইট স্যান্ডের পরীক্ষায় লেজারটি ২ হাজার থেকে ৩ হাজার দূরপাল্লা বিশিষ্ট ৬০এমএম মর্টার শেল প্রতিহত করেছে।
পূর্ণ বিবরণ না দিলেও সামরিক বাহিনীর কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, মর্টার ও ড্রোন প্রতিহতে অভূতপূর্ব সাফল্য দেখিয়েছে লেজার অস্ত্রটি।
তারা আশা করছেন, এ লেজার অস্ত্রটির আরও উন্নত সংস্করণ মর্টার রাউন্ডের চেয়েও দ্রুতগতির ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিহত করতে পারবে।

শেয়ার