রাস্তা অবরোধ করে বিজিবি’র গাড়ি বহরে ইটপাটকেল নিক্ষেপ ॥ জামায়াত নেতা হাসিম রেজা আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোর-বেনাপোল মহাসড়কে নাশকতা সৃষ্টির মূল হোতা জামায়াত নেতা অধ্যাপক আবুল হাসিম রেজাকে আটক করেছে বিজিবি। হাসিম রেজা সদর উপজেলার জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি ও দেয়াড়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান। বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টার দিকে যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের নতুনহাট থেকে তাকে আটক করা হয়। ১৪ আগস্ট ট্রাক চালককে মারপিট ও গাড়ি পোড়ানোসহ তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে।
যশোর-২৬ ব্যাটেলিয়ন বিজিবি’র অধিনায়ক লে. কর্নেল মতিউর রহমান জানান, বৃহষ্পতিবার সকাল থেকে যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের নতুনহাটে জামায়াত-শিবির কর্মীরা গাছ ফেলে অবরোধ করে। ওই এলাকার জামায়াত-শিবিরের সন্ত্রাসী ক্যাডাররা আবুল হাসিম রেজার নেতৃত্বে রাস্তায় চলাচলরত ভ্যান রিক্সা ও ইজিবাইক ভাংচুর করে। এমনকি সাধারণ মানুষদের মারপিট ও আতঙ্ক সৃষ্টি করার জন্য সশস্ত্র অবস্থায় সব সময় নতুনহাট বাজারে অবস্থান করে। অন্যান্য দিনের মত এদিন সকাল থেকে নতুনহাট বাজারে অবস্থান করে রাস্তায় গাছ ফেলে অবরোধসহ নাশকতা সৃষ্টি করছিল। বেলা ৩টার দিকে বিজিবি’র টহল দল ওই বাজারে যায়। রাস্তার উপর গাছের গুড়ি দেখে তারা সরিয়ে বেনাপোল চলে যায়। বেনাপোল থেকে ফেরার পথে আবার গাছের গুড়ি দেখে তা সরানোর চেষ্টা করলে হাসিম রেজার নেতৃত্বে জামায়াত-শিবিরের ক্যাডাররা বিজিবি’র গাড়িতে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এরপর বিজিবি’র সদস্যরা ধাওয়া করে হাসিম রেজাকে আটক করে। পরে তাকে কোতয়ালি মডেল থানায় সোপর্দ করা হয়েছে ।
শহর জামায়াতের আমীর অধ্যাপক গোলাম রসুল নতুনহাট থেকে অধ্যাপক আবুল হাশিম রেজাকে আটকের কথা স্বীকার করেছেন। ১৪ আগস্ট আবুল হাসিম রেজার নেতৃত্বে জামায়াত-শিবিরের সশস্ত্র ক্যাডারদের নিয়ে নতুনহাট বাজার থেকে (যশোর-ট-১১-১৪৪৬) নম্বর একটি ট্রাক পুড়িয়ে দেয়। ওই সময় তাদের মারপিটে ট্রাক চালক মাজেদ আলী সরদার (৪০) আহত হন। এ ঘটনায় পুলিশ আবুল হাসিম রেজাসহ ২৪ জনের নাম উল্লেখ করে কোতয়ালি থানায় মামলা করা হয়েছিল। মামলায় আরো ২০/২৫ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে।

শেয়ার