বাংলাদেশে টেকসই নির্বাচন দেখতে চাই

Warsi
বাংলানিউজ ॥
ঢাকা সফররত ব্রিটিশমন্ত্রী ব্যারোনেস সাঈদা ওয়ারসি বলেন, আশা করি দেশের প্রধান দুই দলের মধ্যে তৃতীয় দফা সংলাপে চলমান রাজনৈতিক সংকটের সমাধান হবে।বাংলাদেশে আমরা টেকসই নির্বাচন দেখতে চাই, যাতে বাংলাদেশের মানুষের ইচ্ছার প্রতিফলন থাকবে।
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ব্রিটিশ হাইকমিশনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, প্রধান দলের সঙ্গেই আমার আন্তরিক আলোচনা হয়েছে। দ্দুলই সমঝোতার জন্য রাজি আছেন বলে আমাকে জানিয়েছেন। আশা করছি আগামীকাল (শুক্রবার) তৃতীয় দফা সংলাপেই দুদল একটি সমাধানে পৌঁছবে। এতে করে বর্তমান রাজনৈতিক সংকট সমাধান হবে।
এসময় তিনি সকল রাজনৈতিক দলকে সহিংসতা পরিহারের আহবান জানান। এবং একইসঙ্গে দলগুলোর সিনিয়র নেতাদেরকে সংলাপে বসে চলমান সংকট নিরসনের তাগিদ দেন।
চলমান সহিংসতা বাংলাদেশের সুনামসহ অর্থনীতি এবং জনজীবনের ক্ষতি করছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার নিয়ে তিনি বলেন, আমরাও মানবতাবিরোধী অপরাধের সঙ্গে জড়িতদের বিচার চাই। যারা মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত হয়েছে, তাদের সাজার ব্যাপারে আমি একমত। ৪২ বছর আগে যারা তাদের সহিংসতা শিকার হয়েছে তাদের প্রতিও আমার পূর্ণ সহানূভুতি আছে। তবে তার সাজা হিসেবে মৃত্যুদণ্ড নয়। যুক্তরাজ্য যেকোন ধরনের মৃত্যুদণ্ডের বিরোধী।
যুক্তরাজ্যসহ ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলো যেকোনো ধরনের অপরাধের ক্ষেত্রে মৃত্যুদণ্ডের বিরোধীতা করে থাকে বলেও জানান তিনি।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, কাদের মোল্লার ফাঁসি কার‌্যকর না করতে ব্রিটিশ সরকারের পক্ষ থেকে বার্তা দেওয়ার জন্য তিনি বাংলাদেশে আসেননি। বরং এটি তার নিয়মিত সফর। বাংলাদেশের নির্বাচনে নানাভাবে সহায়তা দিয়ে থাকে ব্রিটিশ সরকার। তারই ফলোআপ করতে তিনি এসেছেন। তাছাড়া গত নভেম্বর মাসে তার বাংলাদেশ সফর করার কথা ছিল। নানা কারণে সেটি পিছিয়ে যায়।
এর আগে সকাল থেকেই ওয়ারসি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়া, প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিব উদ্দীন আহমদ ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেন। সফর শেষে ব্রিফিংয়ে তিনি এসব বৈঠকের তাৎপর‌্য তুলে ধরেন।
উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার সকালেই ঢাকা পৌঁছান সাঈদা ওয়ারসি। মাত্র কয়েক ঘণ্টার সফর শেষে বৃহস্পতিবার রাতেই ঢাকা ছাড়ছেন তিনি।

শেয়ার