নড়াইলে পুলিশের ওপর জামায়াত-বিএনপির সশস্ত্র হামলা॥ ৩ হাজার নেতাকর্মীর নামে মামলা

নড়াইল প্রতিনিধি॥ নড়াইলে পুলিশের ওপর সশস্ত্র হামলা, গাড়ী ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় জামায়াত-শিবির ও বিএনপির ৩ হাজার নেতা-কর্মীর নামে থানায় মামলা হয়েছে। সদর থানার এসআই আতিকুজ্জামানের দায়ের করা মামলাটিতে ৭৯ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। এ ঘটনায় নড়াইল পৌরসভার ডুমুরতলা গ্রামের আবু বক্করের পুত্র হৃদয় (১৮), একই গ্রামের মোদাচ্ছের মোল্যার পুত্র আব্দুল কুদ্দুস (২৩) ও সদর উপজেলার কমলাপুর গ্রামের শাহাদত কাজির পুত্র হাফেজ মওলানা মাছুমকে (৪০) ইতিমধ্যে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে।
সদর থানার অফিসার্স অব ইনচার্জ (ওসি) রফিকুল ইসলাম জানান, পুলিশের ওপর হামলা, গাড়ীতে আগুন ও সরকারী কাজে বাঁধাদানের অভিযোগে ১৮ দলের ৩ হাজার নেতা-কর্মীর নামে মামলা করা হয়েছে। উল্লেখ্য ১১ ডিসেম্বর সকালে জামায়াত-শিবির ও বিএনপি কর্মীরা নড়াইল পৌর এলাকার ডুমুরতলা এলাকায় নড়াইল-মাগুরা সড়কে গাছের গুঁড়ি ফেলে সড়ক অবরোধ করে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে জামায়াত-শিবির ও বিএনপি কর্মী সমর্থকরা চড়াও হয়ে লাঠিসোটা, ধারালো দা ও সড়কি বর্শা নিয়ে হামলা চালায়। এ সময় তারা পেট্রোল বোমা ও ককটেল নিক্ষেপ করে। এতে নড়াইল সদর থানার ওসি (তদন্ত) মোক্তার হোসেন, টিএসআই পান্নু, ডিবি পুলিশের এসআই জালাল, হাবিলদার বাবুল, কনেস্টবল সাইদ, রকিব, হিজবুল্লাহ ও শরিফুল আহত হন। অবরোধকারীরা পুলিশ বহনকারী একটি গাড়ি পুড়িয়ে দেয। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ৭০ থেকে ৮০ রাউন্ড গুলি বর্ষণ করে।

শেয়ার