পোল্ট্রি শিল্পে ৩ মাসে ক্ষতি ৪ হাজার কোটি টাকা!

poltry
বাংলানিউজ ॥
রাজনৈতিক অস্থিরতা, হরতাল-অবরোধে গত ৩ মাসে পোল্ট্রিশিল্পে প্রায় ৪ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। সহিংসতা অব্যাহত থাকলে পোল্ট্রিশিল্প ধ্বংস হয়ে যাবে বলে দাবি পোল্ট্রিশিল্প সংগঠনের নেতাদের।
এ শিল্প রক্ষায় বিরোধের অবসান করে ব্যবসা-বাণিজ্যের পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে সরকার ও রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতি আহবান জানিয়েছেন তারা।
বুধবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাব কনফারেন্স লাউঞ্জে ‘মিট দি প্রেস’ অনুষ্ঠানের সংগঠনের নেতারা এ দাবি করেন।
বাংলাদেশ পোল্ট্রিশিল্প ইন্ডাষ্ট্রিজ কো-অর্ডিনেশন কমিটির আহবায়ক মশিউর রহমান বলেন, ‘এ শিল্পে প্রায় ২৫ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ হয়েছে। প্রায় ৩০ শতাংশ খামার এরইমধ্যে বন্ধ হয়ে গেছে। যারা টিকে আছে তারাও পথে বসার পথে। চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে এ শিল্পে যে ক্ষতি হয়েছে তা বহনের সামর্থ্য খামারিদের নেই।’
এ শিল্প রক্ষার আকুতি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এ শিল্প বাঁচাতে হলে ডিম ও মাংস উৎপাদনকারী পোল্ট্রি খামারি, ব্রিডার্স, ফিড প্রস্তুতকারক এবং বিপণনকারীসহ পোল্ট্রিখাতের অপরাপর সহযোগী প্রতিষ্ঠানগুলোর ব্যাংক ঋণ পুন: তফসিল করাসহ সুদ মাফ করতে সরকারের প্রতি দাবি জানাই।’
তিনি বন্ধ হয়ে যাওয়া খামারগুলো পুনরায় চালুর জন্য আর্থিক সহায়তা, পোল্ট্রি সেক্টরে স্বাভাবিক গতি ফিরিয়ে আনতে আর্থিক প্রণোদনা এবং পোল্ট্রিখাতে সাম্প্রতিক সময়ে যে লোকসান হয়েছে তা পুষিয়ে দিতে আর্থিক সহায়তাসহ সাত দফা দাবি জানান।
ব্রিডার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (বিএবি) মহাসচিব সাইদুর রহমান বাবু বলেন, ‘৩৫ টাকা খরচ করে যে বাচ্চা উৎপাদন করা হয় তা গড়ে মাত্র ১৫-২০ টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে। ১১০-১২০ টাকায় এক কেজি ওজনের যে মুরগি উৎপাদন করে তা ৭০-৮০ টাকা বিক্রি করতে হচ্ছে।’
তিনি বলেন, ‘প্রতি সপ্তাহে প্রায় ১ কোটি ২০ লাখ ব্রয়লার বাচ্চা (ডিওসি) উৎপাদিত হচ্ছে। হরতাল-অবরোধের কারণে প্রায় ৩০ শতাংশ বাচ্চা অবিক্রিত থেকে যাচ্ছে। এতে বিগত ৩ মাসে ব্রয়লার বাচ্চায় প্রায় ১৬৪ কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে।
বাকী ৭০ শতাংশ বাচ্চা খরচের চেয়েও কম বিক্রি করায় লোকসান হয়েছে প্রায় ২১৮ কোটি টাকা। মোট বাচ্চায় ক্ষতি হয়েছে ৩৮২ কোটি টাকা।’
ফিড ইন্ডাস্ট্রিজ অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ (ফিআব) সাধারণ সম্পাদক ফজলে রহিম খান শাহরিয়ার বলেন, ‘ বিগত ৩ মাসে উৎপাদনের চাহিদা ছিল প্রায় ৬ লাখ মেট্রিক টন। যার মূল্য ছিল ২ হাজার ৪ শত কোটি টাকা। হরতাল-অবরোধের কারণে ৩৫-৪০ শতাংশ চাহিদা কম থাকায় প্রায় ১ হাজার কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে।’

শেয়ার