শোকাশ্রুতে বিদায় ম্যান্ডেলাকে স্মরণ করছেন বিশ্ব নেতারা

Memorial
বাংলানিউজ ॥
বিশ্ব শান্তি আন্দোলনের অবিসংবাদিত নেতা নেলসন ম্যান্ডেলার প্রতি শ্রদ্ধায় অবনত জোহানেসবার্গের সকার সিটি স্টেডিয়ামসহ পুরো বিশ্ব।
মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সকাল ১১টার কিছুক্ষণ পরে (বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টায়) গুড়িগুড়ি বৃষ্টিকে উপেক্ষা করেই ৯৫ হাজার উপস্থিতি ধারণে সক্ষম এই স্টেডিয়ামে প্রিয় ম্যান্ডেলার স্মরণানুষ্ঠান শুরু হয়। অনুষ্ঠানে বিশ্ব নেতাদের সঙ্গে সঙ্গে জড়ো হওয়া হাজারো মানুষ প্রিয় নেতাকে শেষ বিদায়ের শোকে বিহ্বল হয়ে ওঠেন।
স্মরণানুষ্ঠানে জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি-মুন বলেন, দক্ষিণ আফ্রিকা একজন সত্যিকারের ‘হিরো’কে হারিয়েছে এবং একজন বাবাকে হারিয়েছে। আর বিশ্ব হারিয়েছে একজন শ্রেষ্ঠ শিক্ষক ও বন্ধুকে।
স্মরণানুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা, ভারতীয় প্রেসিডেন্ট প্রণব মুখার্জী, ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট দিলমা রৌসেফ, কিউবান প্রেসিডেন্ট রাউল কাস্ট্রো প্রমুখ।
আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমের প্রতিনিধিরা জানিয়েছেন, মঙ্গলবার সূর্য ওঠার আগ থেকেই ম্যান্ডেলার স্মরণানুষ্ঠানস্থল জোহানেসবার্গের সোবেতোর এফএনবি স্টেডিয়ামে (সকার সিটি স্টেডিয়াম) জড়ো হতে শুরু করেন হাজারো মানুষ।
সংবাদ মাধ্যমের প্রতিনিধিরা আরও জানান, উপস্থিত হওয়া জনতার গায়ে ম্যান্ডেলার ছবি সম্বলিত টি-শার্ট, শার্ট ও চাদর দেখা যায়। কারও হাতে ঝোলে প্রিয় নেতার ছবি সম্বলিত ফেস্টুন, প্ল্যাকার্ড ও জাতীয় পতাকা। কেউ অশ্রুসিক্ত স্বরে গেয়ে ওঠেন, ‘প্রিয় মাদিবা, তুমি আমাদের হৃদয়ে থাকবে, তুমি বিদায় নিচ্ছো না, তুমি থাকছো আমাদের হৃদয়ে!’ কেউ গেয়ে ওঠেন ‘আম্যান্ডেলা লো, আবামাজিয়ো, আবাকাজে বামবোনে’ (উনি সেই ম্যান্ডেলা, যাকে আপনারা চেনেন, তার মতো আর কেউ নয়!) আবার কারও স্বরে বাজে, ‘আমরা তোমায় ভালোবাসি বাবা মাদিবা’।
স্মরণানুষ্ঠানে বান কি-মুন, বারাক ওবামা, প্রণব মুখার্জী, দিলমা রৌসেফ, রাউল কাস্ট্রো ছাড়াও উপস্থিত রয়েছেন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ, সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশ, বিল ক্লিনটন, জিমি কার্টার, ফরাসি প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া ওঁলাদে, যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন, জার্মান প্রেসিডেন্ট জোচিম গ্যঁক, ইউরোপীয় ইউনিয়ন কমিশনের প্রেসিডেন্ট জোসে ম্যানুয়েল বারোসো, ডাচ রাজা উইলেম আলেক্সান্ডার, স্পেনের যুবরাজ ক্রাউন প্রিন্স ফিলিপ, ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস, পাকিস্তানি প্রেসিডেন্ট মামনুন হুসাইন, জিম্বাবুয়ের প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবে প্রমুখ।
প্রিয় ম্যান্ডেলার স্মরণানুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন বর্ণবাদবিরোধী আন্দোলনের কর্মী ও ইংরেজ সঙ্গীতশিল্পী পিটার গাব্রিয়েল, আইরিশ সঙ্গীত শিল্পী পল ডেভিড হিউজন (বোনো) সহ অনেক অভিনেতা অভিনেত্রীও।
স্মরণানুষ্ঠানের পর ১৫ ডিসেম্বর রোববার আনুষ্ঠানিক শেষকৃত্য শেষে শৈশবের স্মৃতিবিজড়িত গ্রাম কুনুতে চির নিদ্রায় শায়িত করা হবে মহাকালের এই মহানায়ককে।
গত ৫ ডিসেম্বর মধ্যরাতে জোহানেসবার্গের নিজ বাসভবনে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন কালের এই মহানায়ক।
প্রেসিডেন্ট জ্যাকব জুমার কার্যালয় সূত্র জানিয়েছে, মঙ্গলবারের স্মরণানুষ্ঠানের পর প্রিটোরিয়ায় প্রেসিডেন্টের বাসভবন ‘ইউনিয়ন বিল্ডিংয়ে’ তিন দিন রাখা হবে ম্যান্ডেলার মরদেহ। তারপর ১৫ ডিসেম্বর রোববার রাষ্ট্রীয় শেষকৃত্য শেষে পূর্বাঞ্চলীয় ক্যাপে প্রদেশের নিজ গ্রাম কুনুতে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হবে মানবতার মহানায়ককে।

শেয়ার