মধুর সমস্যায় নয়াদিল্লি!

বাংলানিউজ ॥
নয়াদিল্লির রাজ্যসভা নির্বাচনে ধরাশায়ী হয়েছে ক্ষমতাসীন কংগ্রেস। প্রথম স্থানে রয়েছে ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) আর দ্বিতীয় স্থানে আম আদমি পার্টি (এপিপি)। ৭০ আসনের ৩২টি বিজেপি, ২৮টি এপিপি ও মাত্র ৮টি পেয়েছে কংগ্রেস।
জনগণ দুর্নীতির দায়ে জর্জরিত কংগ্রেসের কাছ থেকে মুখ ফিরে নিয়ে ভোট দিয়েছে পরিবর্তনের অঙ্গীকার করা বিজেপি আর দুর্নীতিবিরোধী আন্দোলনকারী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের এএপিকে। কিন্তু এককভাবে কেউ সরকার গঠন করতে পারছে না। এককভাবে সরকার গঠন করতে প্রয়োজনে ৩৬ আসন।
এখন জোটবদ্ধ হয়ে সরকার গঠন করতে হবে। সাংবিধানিকভাবে বিজেপিকে সরকার গঠন করতে অগ্রাধিকার পাবে। বিজেপি কংগ্রেস গঠন করতে ব্যর্থ হলে পুনরায় নির্বাচন হবে। কিন্তু নির্বাচন মধ্যবর্তী ছয়মাস নয়াদিল্লি চলবে কেন্দ্রীয় সরকারের অধীনে।
কংগ্রেসকে হারানোর মিশনে সফল হলেও সরকার গঠন নিয়ে সমস্যায় পড়েছে বিজেপি। এদিকে বিজেপিতো নয়ই, কোনো দলের সঙ্গে হাত মেলাবে না এএপি।
আম আদমি পার্টি জানিয়েছে, তারা কোনো জোটে যাবে, প্রয়োজনে তারা পুনরায় নির্বাচনে যাবে। দলটির প্রধান অরবিন্দ কেজরিওয়াল বলেছেন, জোটের রাজনীতিতে তার দল বিশ্বাস করে না।
বিজেপি বলছে, এএপি সরকার গঠন করুক। তারা বিরোধী দলে থাকবে।
এএপিকে সরকার গঠনে বিজেপির আহ্বানকে ‘অযৌক্তিক’ বলেছে এএপি প্রধান কেজরিওয়াল। এএপির যোগেন্দ্র যাদব বলেছেন, যদি লেফটেন্যান্ট গভর্নর নাজিব জুং আমাদের (সরকার গঠনে) আহ্বান জানান, তাহলে আমরা তাকে বলব, সরকার গঠন করতে ভোটারদের অনুমোদন পাইনি। এটি খুবই আশ্চর্যের ব্যাপার, একক বৃহত্তম পার্টি (বিজেপি) দ্বিতীয় নাম্বার দলকে সরকার গঠনের আহ্বান জানাচ্ছে।’
প্রথমবারের মতো দিল্লির এমন পরিস্থিতি হলো, দুই দলই একে অপরকে জোরাজুরি করছে সরকার গঠন করতে। নির্বাচনে এগিয়ে থাকা দু’দলই বিরোধীর আসনে বসতে আগ্রহী।
গত নির্বাচনের জয় পাওয়া কংগ্রেসের হাতছাড়া হয়েছে ৩৫টি আসন। আর বিজেপির সংখ্যায় যোগ হয়েছে ৯টি আসন। প্রথমবারের মতো নির্বাচনে এসেই বাজিমাত করেছে এএপি।
ভারতে দুর্নীতির বিরুদ্ধে আন্না হাজারের সঙ্গে আন্দোলনে নেমেই আলোচনায় উঠে আসেন কেজরিওয়াল। সেই আন্দোলনকে পুঁজি করেই ২০১২ সালের নভেম্বরে গঠন করেন আম আদমি পার্টি।
২০১৩ সালের রাজ্য সরকার নির্বাচনে কংগ্রেস ৭০ আসনে, বিজেপি ৬৬ আসনে এবং এপিপি ৭০ আসনে তাদের প্রার্থী দেয়। গত ১৫ বছর ধরে নয়াদিল্লির ক্ষমতায় ছিল কংগ্রেস।
এদিকে ভারতের সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা কিরণ বেদি জোট সরকার গঠনের জন্য বিজেপি ও এএপিকে আহ্বান জানিয়েছেন।
তিনি বলেছেন, একটি স্থায়ী সরকার না পাওয়াটা দিল্লির জন্য খুবই অন্যায্য এবং কোনো দলই সরকার গঠন করতে না চাইলে পুনরায় নির্বাচন ছাড়া কোনো উপায় নেই।
তিনি বলেছেন, বিজেপি ও এএপিকে হাতে হাত রেখে নতুন সরকার গঠন করা উচিত। দুই দল জোট সরকার গঠন করলে তা ভোটাদের জন্য সম্মানের হবে।

শেয়ার