ইয়েমেনে হামলার দায় স্বীকার আল-কায়েদার

alqaeda
সমাজের কথা ডেস্ক॥ ইয়েমেনের রাজধানী সানার বাব আল ইয়ামানে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় ভবনে আত্মঘাতী গাড়ি বোমা বিস্ফোরণ এবং বন্দুকধারীদের হামলার ঘটনার দায় স্বীকার করেছে আরব উপদ্বীপের আল-কায়েদা গোষ্ঠী (একিউএপি)।
বৃহস্পতিবারের ওই হামলায় নিহত হয় অন্তত ৫২ জন। ঘটনার দায় স্বীকার করে একিউএপি’র আল-মালাহিম শাখা জানায়, সানার মন্ত্রণালয় ভবন থেকে যুক্তরাষ্ট্রের চালক বিহীন বিমান (ড্রোন) অভিযান পরিচালনা করার কারণেই এ ভবনকে হামলার লক্ষ্যবস্তু করা হয়েছে।
হামলায় মন্ত্রণালয়ের হাসপাতালের ভেতরেও গোলাগুলি হয়। বন্দুকযুদ্ধে বেশিরভাগ বন্দুকধারীই নিহত হয় বলে জানায় প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।
মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র রয়টার্সকে জানায়, “মন্ত্রণালয় ভবনে দিনের কাজ শুরু হওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যে হামলা হয়। একজন আত্মঘাতী বোমা হামলাকারী একটি গাড়ি চালিয়ে ভবনের ফটকে বিস্ফোরণ ঘটায়”।
কর্মকর্তারা বলেন, ওই গাড়িকে অনুসরণ করা অন্য একটি গাড়ি ভবনের ভেতরে ঢুকে পড়ে গুলি ছোড়ে। বন্দুকধারীরা সামরিক পোশাক পরা ছিল।তাদের সঙ্গে সেনাদের গুলিবিনিময় হয়।
টুইটারে এক বার্তায় আল-মালাহিম জানায়, মুজাহিদিনরা প্রতিরক্ষা দপ্তরটিতে ড্রোন হামলা পরিচালনা কক্ষ এবং মার্কিন বিশেষজ্ঞরা থাকার বিষয়টি প্রমাণ করার পর সেখানে হামলা চালানো হয়।
ড্রোন কন্ট্রোল রুম লক্ষ্য করে হামলা চালানোর পরিকল্পনার আওতায় মুজাহিদীনরা একটি রুম ধ্বংস করেছে বলে জানানো হয় ওই বার্তায়।
এতে আরো বলা হয়, মুসলিম জনগণের ওপর যুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে এমন নিরাপত্তা দপ্তর যেখানে থাকবে সেখানেই হামলা চালানো ন্যায়সঙ্গত।
একিউএপি ও এর মিত্রদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ইয়েমেন সরকারকে সহযোগিতা করার জন্য দেশটির প্রেসিডেন্ট হাদি প্রকাশ্যেই যুক্তরাষ্ট্রের ড্রোন অভিযানের প্রশংসা করে আসছেন।

শেয়ার