শাহরুখ প্রসঙ্গে সালমান

salmansharuk
সমাজের কথা ডেস্ক॥
নির্মাতা কারান জোহরের জনপ্রিয় টিভি অনুষ্ঠান ‘কফি উইথ কারান’-এ অংশ নিয়ে প্রথমবারের মতো শাহরুখ খানের সঙ্গে নিজের সম্পর্কের টানাপড়েনের কথা পরিষ্কারভাবে তুলে ধরলেন সালমান খান।

একসময় খুব ঘনিষ্ট বন্ধুত্ব থাকলেও ২০০৮ সালে ক্যাটরিনা কাইফের জন্মদিনের অনুষ্ঠানে একটি কারণে মনোমালিন্য হওয়ার পর থেকে দীর্ঘ পাঁচ বছর তাদের মুখ দেখাদেখি বন্ধ ছিল।

চলতি বছর রমজান মাসে রাজনীতিবিদ বাবা সিদ্দিকির ইফতার পার্টিতে শাহরুখের দিকে আবারও বন্ধুত্বের হাত বাড়ান সালমান। পুরনো বন্ধুকে জড়িয়ে ধরে দূর করেন সম্পর্কের শীতলতা।

কিন্তু আগের সেই বন্ধুত্ব কি আর ফিরে আসা সম্ভব?

এনডিটিভির খবর অনুযায়ী, সম্প্রতি কারানের অনুষ্ঠানে সালমান স্বীকার করেছেন, তাদের বন্ধুত্ব আগের মতো নেই আর।

সালমান বলেন, “আমি শতভাগ নিশ্চিত আমরা আগের মতো ‘বেস্ট ফ্রেন্ড’ হতে পারব না। শাহরুখের নিজের পরিবার আছে, তিনি তার পথে এগিয়ে গেছেন; আর আমিও আমার পথে এগিয়ে গেছি। তার আমাকে যেমন দরকার নেই, তেমনই আমারও তাকে প্রয়োজন নেই।”

শাহরুখের সঙ্গে মনোমালিন্যের বিষয়টি নিয়ে সালমানের ভাষ্য, “দুজন ব্যক্তি, যাদের মধ্যে ভালো সম্পর্ক ছিল। এক রাতের ঘটনায় তাদের সম্পর্ক নষ্ট হয়ে যায়। এই একটি বিষয় আমাকে এখনও কষ্ট দেয়।”

এর আগে একবার কারানের এই অনুষ্ঠানে শাহরুখ সালমানের কাছে ক্ষমা চেয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন, “যদি সালমান আমার উপর ক্ষুব্ধ হয়ে থাকেন, তবে এর জন্য অবশ্যই আমি দায়ী। এখানে তার কোনো দোষ নেই। যদি আমার প্রিয় কেউ আমার উপর রেগে থাকে, তবে সেটা অবশ্যই আমার নিজের কারণে। আর কারানের এই অনুষ্ঠানে এসে আমি এর জন্য ক্ষমা চাচ্ছি।”

কিন্তু জনসম্মুখে ক্ষমা চেয়েও সালমানের মন গলাতে পারেননি শাহরুখ।

সালমান সম্প্রতি কারানকে বলেছেন, “শাহরুখ চাইলে সে রাতেই আমার বাড়িতে এসে আমার কাছে ক্ষমা চাইতে পারতেন এবং সবকিছু ওখানেই শেষ করে দিতে পারতেন। কিন্তু তিনি তা করেননি, আর তাই আমিও এই বিষয়ে মাথা ঘামাইনি। প্রতিদিন আমার বাড়ির সামনে দিয়ে চার থেকে পাঁচবার যেতে হয় শাহরুখকে, ঐ সময়ে তিনি চাইলেই আমার বাড়ির কড়া নেড়ে যেতে পারতেন।”

তবে এতকিছুর পরেও, অন্য কারও মুখে শাহরুখের নিন্দা শুনতে রাজি নন সালমান।

তিনি বলেন, “মানুষ মনে করে তারা আমার কাছে এসে শাহরুখের ব্যাপারে যাচ্ছেতাই বলতে পারবে। আমি কাউকে এই সুযোগ কখনও দেব না।”

শেয়ার