এরশাদের শেষ কথা শেষ নয়: কাদের

Kader
সমাজের কথা ডেস্ক॥ নির্বাচনে অংশ নেয়ার বিষয়ে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের শেষ কথা শুনতে আরো অপেক্ষা করতে হবে মন্তব্য করেছেন যোগাযোগ মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।
মঙ্গলবার মন্ত্রণালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী বলেন, “মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের আগ পর্যন্ত এরশাদের মুখে শেষ কথা বলার সময় এখনো শেষ হয়নি।”

জাতীয় পার্টি নির্বাচনে অংশ না নেয়ার আসন্ন নির্বাচন প্রশ্নের মুখে পড়বে বা অনিশ্চয়তার দিকে যাচ্ছে কি না সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের এ মন্তব্য করেন।

এর আগে এক সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচনে না যাওয়ার ঘোষণা দেন এরশাদ।

বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি অনিশ্চয়তার মধ্যে ঘুরপাক খাচ্ছে মন্তব্য করে মন্ত্রী বলেন, “অনেক কিছুই অবিশ্বাস্য, অপ্রত্যাশিতভাবে ঘটে যাচ্ছে।

“আগামী ৭ দিনের মধ্যে অর্থ্যাৎ মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের আগেই এ বিষয়গুলো একটি স্থিতিশীল অবস্থায় ফিরে আসবে।”

আগামী ৭দিন পর কি অবস্থা তৈরি হবে জানতে চাইলে কাদের বলেন, “লেটেস্ট এর পরও লেটেস্ট থাকতে পারে, অপেক্ষা করুন দেখুন।”

চলমান সহিংসতায় দেশে জরুরি অবস্থা জারি করা হবে কি না জানতে চাইলে যোগাযোগমন্ত্রী বলেন, “দেশে জরুরি অবস্থা জারি করার পরিস্থিতি হয়নি।”
সোমবারে খালেদা জিয়ার বক্তব্যর সমালোচনা করে তিনি বলেন, “খালেদা জিয়ার বক্তব্য আগুনে পোড়া দগ্ধ, মৃত এবং মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়া মানুষের সাথে নির্মম তামাশা ছাড়া আর কিছু না।”
খালেদা জিয়ার তফসিল স্থগিত করে সমঝোতায় আসার বক্তব্যর প্রেক্ষিতে কাদের বলেন, “সহিংসতার পথ ছেড়ে নির্বাচন ও শান্তির পথে আসুন। সব দলের সমান সুযোগ সৃস্টির জন্য নির্বাচন কমিশনের উদ্যোগকে আমরা পুরোপুরি সহযোগিতার আশ্বাস দিচ্ছি।”
“হরতাল ও অবরোধের নামে মানুষ মারা হচ্ছে, সরকারি সম্পদ নস্ট করা হচ্ছে। অন্যদিকে তিনি বলছেন দেশের কোথাও কোনো নিরপরাধ সাধারণ মানুষের ওপর যেন হামলা না হয়, কোথাও যেন তাদের সম্পদ নষ্ট না হয়।”
বৃদ্ধ, নারী ও শিশুদের মারা হচ্ছে আর তিনি (খালেদা জিয়া) মায়াকান্না দেখাচ্ছেন বলে মন্তব্য করেন মন্ত্রী।
জনসমর্থনের অভাবে অতীতের মতো বিএনপিদর চলমান আন্দোলন মুখ থুবড়ে পড়বে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের এই সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ওবায়দুল কাদের বলেন, “আন্দোলনের নামে ১৬ কোটি মানুষকে জিম্মী করে মানুষ মারার রাজনীতি হচ্ছে।”

শেয়ার