আরএন রোডে জমি নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোর শহরের আরএন রোডে সাড়ে ৬ শতক জমি নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে টান টান উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে। এক পর্যায়ে মসজিদ কমিটির পক্ষের লোকেরা ঘরের টিন খুলে নেয় এবং দেয়াল ভেঙ্গে ফেলে।
আরএন রোড এলাকার আবুল কাশেমের ছেলে মুরাদ অভিযোগ করেছেন, জমিটির প্রকৃত মালিক একজন অবাঙ্গালি। দেশ স্বাধীনের পর থেকে তারা দখলে নিয়ে বসবাস করে আসছেন। গত কয়েক বছর ধরে মসজিদ কমিটি জমিটি তাদের দাবি করে আমাদের চলে যেতে বলে। অথচ মসজিদ কমিটির কাছে কোন বৈধ কাগজপত্র নেই। রোববার সকালে তাদের ঘরের টিন খুলে নেয় এবং দেয়াল ভেঙ্গে দেয়।
মুরাদের অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করে মসজিদ কমিটির সভাপতি মোফাজ্জেল হোসেন খসরু বলেছেন, জমিটির প্রকৃত মালিক একজন পাকিস্তানি মহিলা। তার দু’মেয়ে পাকিস্থানে থাকেন। এ দেশে ফেরার সুযোগ নেই। সে কারণে ওই মহিলা মৃত্যুর আগে সাড়ে ৬ শতক জমি মসজিদের নামে দিয়ে যান। পরে মসজিদ কমিটি ওই জায়গাটিতে ৪ জন ভাড়াটিয়া বসায়। ভাড়াটিয়ারা যথারীতি প্রতি মাসে ভাড়াদিয়ে আসছে। প্রথমে ৩ থেকে ৪ মাস ৩/৪শ টাকা করে ভাড়া দিতো। পরে ১১শ’ টাকা করে ভাড়া দেয়। মসজিদের নামে বৈধ কাগজ পত্র আছে। ডিসি অফিসের সার্ভেয়ার এসে জায়গাটি পরির্দশন করে গেছে। গত তিন মাস যাবত আবুল কাশেম ভাড়া না দিয়ে তালবাহানা করছে। কোতোয়ালি থানা পুলিশকে মসজিদের জায়গার কাগজ পত্র দেখানো হয়। ১৫ দিন আগে পুলিশ এসে অবৈধ দখলদারদের জায়গা ছেড়ে দিয়ে চলে যেতে বলে। কিন্তু তারা না যাওয়ায় মসজিদ কমিটির লোকজন এসে তাদের উচ্ছেদের চেষ্টা করে। অন্য ভাড়াটিয়ারা চলে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলেও আবুল কাশেম যেতে নারাজ। কোতয়ালি থানার এসআই রেজাউল ইসলাম জানিয়েছেন, মসজিদ কমিটি বৈধ কাগজপত্র আছে বলে দাবি করলেও তারা কোন কাগজ পত্র দেখাতে পারেনি।

শেয়ার