যশোরে বিএনপি জামায়াতের সহিংসতা র‌্যাবের ভূমিকা নিয়ে নানা প্রশ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ অবরোধে যশোরে বিভিন্নস্থানে ১৮দল সহিংসতা ঘটালেও নিশ্চুপ ছিল এলিট ফোর্স খ্যাত র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। শুক্রবার রাতে আইনশৃংখলা রক্ষাকারী এই বাহিনী সাংবাদিক রাজনৈতিক কর্মী ও আমজনতার উপর হামলা চালায়। কিন্তু গতকাল অবরোধ চলাকালে সাধারণ মানুষের উপর হামলা গাড়ি ভাংচুর করা হলেও মাঠে ছিল না র‌্যাব। এমনকি মণিরামপুরে এমপি খান টিপু সুলতান, ইউএনও, ওসির উপর হামলা ও সদরের নতুনহাট বাজারে বিজিবি’র গাড়ি ভাংচুর করে তাণ্ডব ঘটালেও তারা কোন ভূমিকা রাখেনি। র‌্যাবের এ অনুপস্থিতির সুযোগ নিয়ে মাঠ দখল করে নাশকতা করে বিএনপি ও জামায়াত শিবির।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের নতুনহাট বাজারে সকাল থেকে আবরোধ করে স্থানীয় ১৮ দলের নেতাকর্মীরা। এসময় সকাল থেকে সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। সকালে কোলকাতা থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী সৌহাদ্য পরিবহন নতুনহাট বাজারে পৌঁছালে অবরোধকারীরা ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে ভাংচুর চালায়। একইভাবে বেলা ১১ টার দিকে বিজিবির গাড়ি আটকে দিয়ে ইটপাটকেল ছোড়া হয়। যশোর ২৬ ব্যাটালিয়ন বর্ডার গার্ডের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মতিউর রহমান সাংবাদিকদের জানান, তিনি যশোর থেকে বেনাপোলের দিকে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে নতুনহাট বাজারে পৌঁছালে তাদের গাড়িতে অবরোধকারীরা ইট পাটকেল নিক্ষেপ করলে গাড়ির একটি লাইট ভেঙ্গে যায়। এসময় বিজিবি সদস্যরা চার রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়েন। অপরদিকে যশোর-খুলনা মহাসড়কের বসুন্দিয়া বাজারে লাঠিসোটা নিয়ে অবরোধ করা হয়। একইভাবে শহরের চাঁচড়ায় জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাবেরুল হক সাবু, সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন খোকনসহ নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে গাড়ি ভাংচুর করা হয়। এছাড়া কিসমত নওয়াপাড়ায় বিএনপি নেতা নার্গিস বেগম, তার পুত্র অনিন্দ্য ইসলাম অমিতসহ কয়েকজনের নেতৃত্বে মোটরসাইকেল ভাংচুর করে আগুন দেয়া হয়। এসময় পথচারীদের মারপিট ও বাইসাইকেল থেকে নামিয়ে হেনেস্তা করা হয়। সাধারণ মানুষের ধারণা র‌্যাব মাঠে না থাকায় এসব অরাজতা করার সুযোগ পেয়েছে অবরোধকারীরা। অন্য দিকে আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতা শাহীন চাকলাদার মনোনয়ন বঞ্চিত হওয়ায় তার কর্মী সমর্থকরা মনোকষ্টে গতকাল কেউ অবরোধ বিরোধী কর্মসূচিতে মাঠে নামেননি। এই সুযোগে রাজপথ দখল করে নাশকতা সৃষ্টি এবং ক্রিকেট খেলা করেছে জামায়াত শিবির।। অবশ্য এর আগে শাহীন চাকলাদার এবং তার কর্মী সমর্থকদের সরব উপস্থিতিতে হরতাল অবরোধের কর্মসূচি দিলেও রাজ পথে নামতে পারিনি ১৮ দল।

শেয়ার