মণিরামপুরে অবরোধকারীদের হামলায় ইউএনও ওসিসহ ২৪ পুলিশ আহত॥ জিপ পিকআপ ভাংচুর আগুন

Jeep
মোতাহার হোসেন, মণিরামপুর॥ মণিরামপুরে অবরোধকারীরা হামলা চালিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের জীপ ও পুলিশের পিকআপ ভাংচুর এবং ইউএনও’র কাজে ব্যবহৃত একটি ট্রাকে অগ্নিসংযোগ করেছে। শনিবার বিকেলে উপজেলার চালকিডাঙ্গা বাজারে এঘটনা ঘটে। এতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, থানার ওসি, এসআই ও কন্সটেবলসহ ২৪ জন আহত হয়েছেন। তবে এসময় ইউএনও’র গাড়িতে থাকা স্থানীয় সংসদ সদস্য এ্যাড. খান টিপু সুলতান থাকলেও তিনি আহত হননি বলে জানাগেছে।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, ১৮ দলের ডাকা ৭২ ঘন্টা অবরোধের প্রথম দিন উপজেলা নির্বাহী অফিসার শরীফ নজরুল ইসলাম কয়েকজন পুলিশ সদস্য ও স্থানীয় ব্যবসায়ীর একটি ট্রাক নিয়ে দুপুর থেকে মণিরামপুরের বিভিন্ন সড়কে অবরোধকারীদের দেওয়া কাঠের গুড়ি উঠিয়ে নিয়ে আসেন। একপর্যায় বিকেলে উপজেলার চালকিডাঙ্গা এলাকায় পৌঁছে কাঠের গুড়ি ট্রাকে উঠাতে শুরু করলে অবরোধকারীরা প্রতিবাদ করে। এসময় ইউএনও’র গাড়ীতে স্থানীয় সংসদ সদস্যকে দেখে অবরোধকারীরা আরো ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। এক পর্যায় অবরোধকারীরা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের উপর চড়াও হলে পুলিশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি করে। এতে মূহুর্তেই পরিস্থিতি আরো অশান্ত হয়ে ওঠে। অবরোধকারীরা এসময় ইউএনও’র জীপ ও পুলিশের ব্যবহৃত পিকআপ ভাংচুর করে। এসময় অবরোধকারীদের হামলায় তিনি মারাত্মক জখম হন। এছাড়া আহত হন মণিরামপুর থানার ওসি মীর রেজাউল ইসলাম, ওসি নাসিরউদ্দীন (তদন্ত), এসআই নিশিকান্ত সরকার, রমজান আলী, শরিফুল ইসলাম ও কন্সটেবল আব্দুল মতিন, নির্মল ঘোষসহ ২৪ জন। অবরোধকারীরা কাঠ উঠানোর কাজে ব্যবহৃত ইউএনও’র ভাড়া করা ট্রাকটিতে আগুন ধরিয়ে দেয়। আহতদেরকে মণিরামপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মণিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মীর রেজাউল ইসলাম অবরোধকারীদের হামলায় ইউএনওসহ ২৪ জন আহত হওয়ার কথা জানান। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শরীফ নজরুল ইসলাম গুরুতর আহত হওয়ায় তার মন্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

শেয়ার