ফের ওয়ানডের এক নম্বর অলরাউন্ডার সাকিব

shakib
সমাজের কথা ডেস্ক॥
গত মে মাসে জিম্বাবুয়ে সফরের পর থেকে আর ওয়ানডের জার্সি গায়ে নামা হয়নি সাকিব আল হাসানের। সম্প্রতি ঘরের মাঠে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে একদিনের সিরিজে থাকা হয়নি ডেঙ্গু জ্বরের কারণে। তবুও সেপ্টেম্বরে হারানো অলরাউন্ডারের শীর্ষস্থানটি আবারও ফিরে পেলেন বাংলাদেশের এই ক্রিকেট তারকা। আগের মতোই পাকিস্তানি অলরাউন্ডার মোহাম্মদ হাফিজের ব্যর্থতায় শীর্ষে জায়গা পেলেন সাকিব।
সম্প্রতি হাফিজ দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে হোম ও অ্যাওয়ে ম্যাচে ব্যাট-বল দুটোতেই ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন। সংযুক্ত আরব আমিরাতে প্রোটিয়াদের বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত রান ৩৩। ৪-১ ব্যবধানে হারা ওই সিরিজে ডানহাতি এই অলরাউন্ডার ব্যাট হাতে সবমিলিয়ে করেছেন ১০৮ রান। বল হাতে উইকেটও পেয়েছেন মাত্র তিনটি।
এছাড়া দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে ওয়ানডে সিরিজ ২-১ এ জিতেছে পাকিস্তান। কিন্তু এখানেও ব্যর্থ হাফিজ। প্রথম দুই ম্যাচের ব্যর্থতায় তৃতীয় ম্যাচটিতে বাদ পড়তে হয় তাকে। ব্যাট হাতে ৮ রান ও বল হাতে মাত্র একটি উইকেট নেন পাকিস্তানের এই তারকা।
এমন পারফরমেন্সে রেটিং পয়েন্ট খুঁইয়ে দুইয়ে নেমে এসেছেন হাফিজ (৩৭০)। আর ৩৭৬ রেটিং পয়েন্টে শীর্ষে উঠে গেছেন সাকিব। পাকিস্তানি অলরাউন্ডারের সমান পয়েন্টে তিনে অস্ট্রেলিয়ার শেন ওয়াটসন।
এ বছরের শুরু থেকেই ওয়ানডের অলরাউন্ডারের শীর্ষস্থানে ওঠানামা করতে থাকেন সাকিব ও হাফিজ। একে অন্যের সফলতা-ব্যর্থতায় এক নম্বর জায়গা দখল করেছেন, আবার হারিয়েছেন। গত জানুয়ারিতে সাকিবের কাছ থেকে শীর্ষস্থান কেড়ে নেন হাফিজ। কিন্তু মার্চে পাকিস্তানের দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে ডানহাতি এই অলরাউন্ডার ব্যর্থতার পরিচয় দিয়ে সাকিবকে ফের জায়গা ছেড়ে দেন। এরপর বাংলাদেশের জিম্বাবুয়ে সফরে অনুজ্জ্বল পারফরমেন্সে মে মাসে আবার শীর্ষস্থান হারান বাঁহাতি অলরাউন্ডার।
জুনেও ঘটে একই ঘটনা। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে হাফিজের ব্যর্থতায় শীর্ষে ওঠেন বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক। এরপর সেপ্টেম্বরে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে দারুণ পারফরমেন্স করে সাকিবকে টপকে শীর্ষে ওঠেন পাকিস্তানি অলরাউন্ডার।

শেয়ার