সমঝোতা হলে কারাগারে কেউ থাকবেন না: কাদের

Kader
সমাজের কথা ডেস্ক॥
নির্দলীয় সরকারের দাবিতে আন্দোলনরত বিএনপিকে সমঝোতায় আসার আহ্বান জানিয়েছেন ওবায়দুল কাদের।
সমঝোতা হলে বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের মুক্তি দেয়ার ইঙ্গিতও দিয়েছেন যোগাযোগমন্ত্রী।
নির্দলীয় সরকারের দাবিতে বিরোধী দলের অবরোধের মধ্যে শনিবার যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে কাদের বলেন, সমঝোতার সময় এখনো আছে।
“পর্দায় অন্তরালে, নেপথ্যে অনেক কথাই হচ্ছে। সবাই চাইলে সেখান থেকে হঠাৎ করে আলোর ঝলকানি দেখতে পাব। স্বস্তির সুবাতাস হঠাৎ করে বয়ে যাবে। অতীতে দেখা গেছে, এদেশে সমাধান হঠাৎ করেই আসে।”
বিএনপি নেতাদেরকে কারাগারে রেখে সমঝোতা কিভাবে হতে পারে- এই প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর এই সদস্য বলেন, “সমঝোতা হলে কারাগারে কেউ থাকবে না।”

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ, এম কে আনোয়ার, আ স ম হান্নান শাহ, রফিকুল ইসলাম মিয়া, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মীর মো. নাছির উদ্দিন ও আব্দুল আউয়াল মিন্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক খন্দকার গোলাম আকবর কারাগারে রয়েছেন। শনিবার ভোরে গ্রেপ্তার হয়েছেন যুগ্মমহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

সমঝোতা হবে বলে মনে করেন কি না- জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, “হবেই কি না, সে বিষয়ে আমি শতভাগ নিশ্চিত না। তবে আশার প্রদীপটা তো জ্বালিয়ে রাখতে হবে।”
বিএনপি দুটি ‘ভুল’ করেছে বলেও মনে করেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর এই সদস্য। “প্রথমত তারা যদি সংবিধান সংশোধন প্রক্রিয়ায় অংশ নিত, তাহলে পরিস্থিতি আজ ভিন্ন কিছুই হতে পারত। দ্বিতীয়ত বিরোধী দল যদি প্রধানমন্ত্রীর সংলাপের আমন্ত্রণে সাড়া দিতো তাহলেও ভিন্ন পরিস্থিতি হতে পারত। ভবিষ্যতে যদি তারা কখনো আত্মসমালোচনা করে, তাহলে এদুটি ভুল ধরা পড়বে।”এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “কেউ অভ্রান্ত নই। আমরা মানুষ আমাদেরও ভুল হতে পারে।”

বিএনপিকে নির্বাচনে অংশ নেয়ার আহ্বান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, “নির্বাচন কমিশন এখন স্বাধীন কর্তৃত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। এখানে স্বাধীন গণমাধ্যম রয়েছে। দেশি বিদেশি পর্যবেক্ষকরা থাকবে। এই অবস্থায় লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড থাকবে।
“আমাদের এলাকায় আমি ওয়াল রাইটিং, পোস্টার-ফেস্টুন করি নাই। সৌজন্যে অনেকে করেছে। নির্বাচন কমিশন এগুলো নামাতে বলার পরই আমি খবর পাঠিয়েছি এসব নামিয়ে ফেলতে। সবাই যদি আচরণ বিধি মেনে চলে, তাহলে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড হবে না কেন?”

শেয়ার