যশোরে জামায়াত নেতাকে গুলি করে হত্যা॥ শহরে তাণ্ডব, আজ হরতাল ॥ জামায়াতকে মাঠে নামাতে বিএনপি এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে বলে শহরে গুঞ্জন

jessorevhangcur
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোরে আব্দুল হাই সিদ্দিকী বুলবুল নামে এক জামায়াত ক্যাডারকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। সে নওয়াপাড়া ইউনিয়ন জামায়াতের সাধারণ সম্পাদক ও উপশহর আট নম্বর সেক্টরের এস ব্লকের আব্দুল ওয়াজেদ আলীর ছেলে। বুধবার রাত সাড়ে সাতটার দিকে তার বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। এর প্রতিবাদে শহরে ব্যাপক তাণ্ডব চালায় জামায়াত শিবির এবং আজ যশোর শহরে হরতাল ডেকেছে। এদিকে বুলবুল হত্যার জন্য বিএনপিকে দায়ী করে রাতেই শহরে নানা গুঞ্জন ওঠে।
উপশহর পুলিশ ফাঁড়ির এসআই কাওছার আলী জানান, আব্দুল হাই সিদ্দিকী বুলবুল জামায়াতের সশস্ত্র ক্যাডার। বিভিন্ন এলাকা থেকে যুবক ছেলেদের এনে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের প্রশিক্ষণ দেয়াই হলো তার প্রধান কাজ। আবার শহরের শিবির নিয়ন্ত্রিত বিভিন্ন মেসের ছাত্রদের সাথে নিয়ে উপশহর এলাকায় হরতাল অবরোধে জ্বালাও পোড়াও অগ্নিসংযোগ, গাড়ি ভাংচুর করে। ১৮ দলীয় জোটের ডাকা অবরোধে গত দু’দিনে উপশহর খাজুরা বাস স্ট্যান্ড এলাকায় বেশ কয়েকটি ইজিবাইক ভাংচুর করে। বুধবার রাত সাড়ে সাতটার দিকে বাড়িতে বসে কম্পিউটারে বৃহস্পতিবারের অবরোধে নাশকতার নীলনক্সা তৈরি করছিল। এ সময় অজ্ঞাতনামা দুর্বৃত্তরা ঘরের জানালা দিয়ে তাকে লক্ষ্য করে গুলি করে। গুলিটি তার মাথায় লাগলে মাটিতে পড়ে যায়। তাকে উদ্ধার করে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
এ খবর ছড়িয়ে পড়লে জেলা জামায়াতের সাধারণ সম্পাদক মাস্টার নুরুন্নবীর নেতৃত্বে শহরে বিক্ষোভ মিছিল বের করে ব্যাপক তাণ্ডব চালায়।
পুলিশ জানায়, মিছিলকারীরা পরিবহন কাউন্টার,ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর এবং যানবাহনে অগ্নি সংযোগ করে। তারা ছিড়ে ফেলে সরকারের উন্নয়নের বিল বোর্ড এবং বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি সন্বলিত জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পোষ্টার। এদিকে বুলবুলের হত্যার কারণ নিয়ে রাতেই শহরে নানা গুঞ্জন ছড়ায়। অসমর্থিত একটি সূত্র জানায় বুলবুলকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। আর এই হত্যার পেছনে হাত রয়েছে বিএনপির। কারণ হিসাবে বলা হয় ১৮ দলের ডাকা হরতাল অবরোধে যশোরে বিএনপির সাথে গাইট না বেধে নিস্ক্রীয় থাকে জামায়াত। এ অবস্থায় জামায়াতকে মাঠে নামানোর জন্য পরিকল্পিতভাবে বুলবুলকে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করেছে সূত্রটি। অপর একটি সূত্র জানিয়েছে পারিবারিক বিরোধের জের ধরে তাকে হত্যা করা হয়েছে। সূত্রমতে জমিজমা নিয়ে তার সৎ মা ও ভাইদের সাথে বিরোধ চলে আসছিল।

শেয়ার