কলারোয়ায় শিবিরের হামলায় নিহত যুবলীগ নেতা বাবু ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা রবিউলের দাফন সম্পন্ন ॥ ডিআইজির নেতৃত্বে রাতভর র‌্যাব পুলিশ বিজিবির অভিযানে ২৩ জন আটক

কলারোয়া (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি॥ শোক, শ্রদ্ধা আর স্বজন-সতীর্থদের চোখের জলে ভিজিয়ে চিরনিদ্রায় সমাহিত হলেন ১৮ দলীয় জোটের জামায়াত-বিএনপির তান্ডবে নিহত নিহত যুবলীগ নেতা বাবু ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা রবিউল। বুধবার সকাল ১০ টার দিকে কলারোয়া ফুটবল ময়দানে যুবলীগ নেতা মাহমুদুর রহমান বাবু ও বিকেলে দেয়াড়ায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা রবিউল ইসলামের নামাজে জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। জানাযায় বিপুল সংখ্যক শোকার্ত মানুষ অংশ নেন। এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতভর র‌্যাব, পুলিশ ও বিজিবির যৌথ অভিযানে ২৩ জনকে আটক করা হয়েছে।
কলারোয়া ফুটবল ময়দানে যুবলীগ নেতা মাহমুদুর রহমান বাবুর জানাযাপূর্ব আলোচনায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান বিএম নজরুল ইসলাম, ভাইস চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম লাল্টু, আওয়ামী লীগ নেতা সাজেদুর রহমান খান চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক আরাফাত হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার গোলাম মোস্তফা, ছাত্রলীগ নেতা শেখ ইমরান হোসেন প্রমুখ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা মাস্টার আব্দুর রব, রবিউল আলম মল্লিক, লাঙ্গলঝাড়া ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যাপক এমএ কালাম, কেলালকাতা ইউপি চেয়ারম্যান সম মোরশেদ আলি, কলারোয়া প্রেসকাবের সভাপতি গোলাম রহমান, রিপোর্টার্স কাবের সভাপতি আজাদুর রহমান খান চৌধুরীসহ বিভিন্ন শ্রেণী ও পেশার মানুষ। পরে মরহুমের নিজ গ্রাম ছলিমপুরে দ্বিতীয় নামাজে জানাযা শেষে দুপুরে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন হয়। মাহমুদুর রহমান বাবু মৃত্যুকালে বাবা, মা, স্ত্রী ও ৫ বছর বয়সী পুত্র সন্তান রেখে গেছেন। অপরদিকে বিকেলে দেয়াড়া ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক নিহত রবিউল ইসলামের নামাজে জানাযা শেষে দেয়াড়া বেলেমাঠপাড়ার পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। দেয়াড়ায় অনুষ্ঠিত নামাজে জানাযায় বিপুল সংখ্যক মানুষ অংশ নেন। এ সময় স্ব্জনদের আর্তনাদে বাতাস ভারী হয়ে ওঠে। বড় ধরণের আশঙ্কার কথাও বলছেন স্থানীয়রা। তবে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযান অব্যাহত থাকায় নাশকতার ঘটনা নাও ঘটতে পারে এমন কথাও বলেছেন অনেকে। মঙ্গলবার রাতভর পুলিশের খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি মনিরুজ্জামান মনিরের নেতৃত্বে পুলিশ বিজিবি ও র‌্যাব যৌথভাবে কলারোয়ার দেয়াড়া ও সাতক্ষীরার আলীপুর এবং আগরদাঁড়ী ইউনিয়নে অভিযান চালিয়ে ১৮ দলের ২৩ জন নেতা কর্মীকে গ্রেফতার করে।

শেয়ার