অবরোধ সহিংসতার ২য় দিন ॥ সাতক্ষীরা সিরাজগঞ্জ গাজীপুর চট্টগ্রাম যশোর ঢাকায় ৮ লাশ

bus
বাংলানিউজ ॥
বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮দলীয় জোটের টানা ৪৮ ঘণ্টা অবরোধ কর্মসূচির ২য় দিন সহিংসতায় ৮ জনের মৃত্যু হয়েছে।
সাতীরায় সংঘর্ষে এক জামায়াতকর্মীর এবং জামায়াত শিবিরের কাটা গাছের চাপায় এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে আওয়ামী লীগ, পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে এক জামায়াত ও এক ছাত্রদলকর্মী, গাজীপুরের কালিগঞ্জে বিএনপির সঙ্গে সংঘষের্ে এক আওয়ামী লীগ নেতা নিহত হয়েছে। এছাড়া যশোরে ইউনিয়ন জামায়াতের সেক্রেটারিকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।
একইভাবে চট্টগ্রামের পটিয়ায় পিকেটারদের ধাওয়ায় নসিমন উল্টে এর চালক এবং ঢাকায় হরতালে আহত খিলগাঁওয়ের এক নারী ব্যাংক কর্মচারী হাসপাতালে মারা গেছেন।
সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলায় পুলিশ-আওয়ামী লীগের সঙ্গে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে ছাত্রদলের তৃণমূল এক নেতা ও জামায়াতের এক কর্মী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় তিনজন গুলিবিদ্ধসহ ২০ নেতা-কর্মী আহত হয়েছেন।
নিহতরা হলেন-বেলকুচির ধুকুরিয়া বেড়া ইউনিয়নের চাঁদমিতুয়ানী গ্রামের শামসুল আলম সরকারের ছেলে মাসুম বিল্লাহ (২২) ও জামায়াতকর্মী আব্দুল জলিল(৫৫)। মাসুম ধুকুরিয়া বেড়া ইউনিয়ন ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক বলে জানিয়েছে তার পরিবার।
বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
সাতীরা সদর উপজেলার শিয়ালডাঙ্গা এলাকায় পুলিশ, র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) ও বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যদের সঙ্গে সংঘর্ষে শামছুর রহমান (৩৫) নামের এক জামায়াতকর্মী মারা যান। বুধবার ভোর ৪টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
এসময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে যৌথ বাহিনী দেড় শতাধিক রাউন্ড গুলি চালায়। শামছুর রহমান সাতীরা সদর উপজেলার শিয়ালডাঙ্গা গ্রামের আব্দুল মাজেদের ছেলে।
বুধবার রাতে যশোর উপশহরে পুলিশ ফাঁড়ির পেছনে ইউনিয়ন জামায়াতের সেক্রেটারি বুলবুলকে(৩৫) গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। নিহত বুলবুল নতুন উপশহরের ডা. ওয়াজেদ আলীর ছেলে ও পেশায় প্রকৌশলী এবং উপশহর ইউনিয়ন জামায়াতের সেক্রেটারি।
রাজধানীর খিলগাঁওয়ে আগের দিন মঙ্গলবার অবরোধকারীদের ককটেলে আহত আনোয়ারা বেগম (৪৫) নামের বেসরকারি খাতের ন্যাশনাল ব্যাংকের ব্যাংকের এক নারী কর্মচারী হাসপাতালে মারা গেছেন।

পুলিশের বরাতে তিনি জানান, ওই নারী বুধবার ভোর রাত সাড়ে ৪টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

শেয়ার