রেলপথে নাশকতা চলছেই

rail

সমাজের কথা ডেস্ক॥ বিরোধী দলের অবরোধের দ্বিতীয় দিনেও দেশের বিভিন্ন স্থানে রেললাইনে নাশকতার ঘটনা ঘটেছে। এতে রেল চলাচল ব্যাপকভাবে ব্যাহত হয়েছে।
অবরোধকারীরা বুধবার ভোরে জয়পুরহাটে রেললাইন উপড়ে ফেলায় চার ঘণ্টা রেল যোগাযোগ ব্যাহত হয়।
সিরাজগঞ্জে গভীর রাতে রেললাইন কেটে ফেলায় সিরাজগঞ্জ এক্সপ্রেস আন্তঃনগর ট্রেনের তিনটি বগি লাইনচ্যুত হয়। এখনো সেখানে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়নি।
সকালে যশোরের রূপদিয়া স্টেশনের কাছে রেললাইন উপড়ে আগুন দিয়েছে বিএনপি-জামায়াতের কর্মীরা। চাঁদপুরে রেললাইনে আগুন ধরিয়েছে অবরোধকারী।
এদিকে আগের রাতে গাজীপুরের রাজেন্দ্রপুরে লাইনচ্যুৎ অগ্নিবীণা এক্সপ্রেসের ইঞ্জিন সরানো গেলেও বগি উদ্ধার শেষ না হওয়ায় ঢাকা-ময়মনসিংহ রুটে ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে।
কমলাপুর স্টেশন মাস্টার সাখাওয়াৎ হোসেন খান বলেন, রাজেন্দ্রপুরে ট্রেনের আটটি বগি লাইনচ্যুত হওয়ায় ঢাকা-দেওয়ানগঞ্জ রুটে ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে। একারণে ময়মনসিংহ, জামালপুর রুটের যাত্রীদের দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে।
এছাড়া কমলাপুর থেকে সকালে সব রুটে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে জানান তিনি।
অবরোধের প্রথম দিন ফিসপ্লেট খুলে ফেলায় ময়মনসিংহের শ্যামগঞ্জে দুর্ঘটনায় পড়ে আন্তঃনগর হাওর এক্সপ্রেস। কসবায় রেললাইন উপড়ে ফেলার পাশাপাশি দুটি ট্রেনে হামলা ও অগ্নিসংযোগ করে অবরোধকারীরা। রেলস্টেশন ও ট্রেনে হামলা হয় নাটোর ও লালমনিরহাটের মহেন্দ্রনগরেও।
এর আগে গত ফেব্রুয়ারিতেও যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের রায় নিয়ে জামায়াত নেতাকর্মীরা একইভাবে দেশজুড়ে রেলপথ ও অবকাঠামো লক্ষ্য করে নাশকতা চালায়।
রেলওয়ের সহকারী প্রকৌশলী ওয়াজির আহমদ মজুমদার জানান, মঙ্গলবার রাত সোয়া ১০টার দিকে রাজেন্দ্রপুরে রেললাইনের ফিসপ্লেট বোল্ট ও রেল ক্লিপ খুলে ফেলায় অগ্নিবীণা এক্সপ্রেসের পাঁচটি বগি লাইনচ্যুৎ হয়। তবে এতে কারো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।
সকাল ৭টার দিকে ট্রেনের ইঞ্জিন উদ্ধার হলেও লাইনচ্যুত বগি সরানোর কাজ চলছে। সন্ধ্যা নাগাদ উদ্ধার কাজ শেষ হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।
রাজেন্দ্রপুর রেলওয়ে স্টেশনের মাস্টার এসএম মফিজুর রহমান জানান, ট্রেনটি লাইনচ্যুৎ হওয়ার পর থেকে এই রুটে চলাচলকারী তিস্তা এক্সপ্রেস, ভাওয়াল এক্সপ্রেস ও কমিউটারসহ সব ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে।
ট্রেন লাইনচ্যুৎ হওয়ার পর রাতে ময়মনসিংহগামী ভাওয়াল এক্সপ্রেস ট্রেনটি টঙ্গী থেকে ঢাকায় ফেরত পাঠানো হয়। বাতিল হয় কমলাপুর থেকে ময়মনসিংহগামী ওর এক্সপ্রেসের যাত্রা।
ট্রেন লাইনচ্যুৎ হওয়ার ঘটনা তদন্তে রেলওয়ে ঢাকা বিভাগের টেকনিক্যাল কর্মকর্তা(ডিটিও) নাজমুল ইসলামকে প্রধান করে চার সদস্যের একটি কমিটি করা হয়েছে। তিন কর্মবিসের মধ্যে তাদের প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।
কমিটির অন্যান্য সদস্যরা হলেন- সিগন্যাল কর্মকর্তা (ডিএসপি) মো. জাকারিয়া, মেকানিক্যাল কর্মকর্তা (ডিএমও) মিজানুর রহমান ও লিয়াকত শরীফ খান।
ভোরে উড়ি-মাধবপাড়া এলাকায় অবরোধকারীরা রেললাইন উপড়ে ফেলায় সেখানে চার ঘণ্টা পর রেল যোগাযোগ ব্যাহত হয়।
জয়পুরহাট স্টেশন মাস্টার নুরল ইসলাম জানান, রেললাইন মেরামত শেষে বেলা ১১টার দিকে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়।
তিনি জানান, লাইন উপড়ে ফেলায় সকালে উড়ি-মাধবপাড়ার দক্ষিণে খুলনা থেকে সৈয়দপুরগামী সীমান্ত এক্সপ্রেস আটকা পড়ে। অন্যদিকে সৈয়দপুর থেকে রাজশাহীগামী বরেন্দ্র আন্তঃনগর জয়পুরহাট স্টেশনে আটকে থাকে।
গভীর রাতে রেললাইন কেটে ফেলায় সিরাজগঞ্জ এক্সপ্রেস আন্তঃনগর ট্রেনের তিনটি বগি লাইনচ্যুত হয়। তবে এতে কেউ হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।
সিরাজগঞ্জ জিআরপি থানার ওসি আলী আকবর জানান, মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে সিরাজগঞ্জ এক্সপ্রেস আন্তঃনগর ট্রেনটি সিরাজগঞ্জ বাজার স্টেশন থেকে রায়পুর স্টেশন হয়ে ঈশ্বরদীর দিকে যাচ্ছিল। সদর উপজেলার কালিয়া হরিপুরে সাড়ে ৩ ফুট রেললাইন কাটা এবং ফিসপ্লেট খোলা থাকায় ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত হয়।
সকাল থেকে লাইন মেরামতের কাজ চলছে জানিয়ে তিনি বলেন, দুপুরের মধ্যে লাইন সংস্কার হলে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়ে আসবে বলে আশা করা হচ্ছে।
সকালে যশোরের রূপদিয়ায় রেললাইন উপড়ে ফেলেছে বিরোধী দলের নেতাকর্মীরা।
যশোরের জিআরপি ফাঁড়ির ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক সেকেন্দার আলী জানান, সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বিএনপি-জামায়াতের কর্মীরা রূপদিয়া স্টেশনের কাছে রেল লাইন উপড়ে ফেলে।
এছাড়া ভোর সাড়ে ৪টার দিকে রূপদিয়ার চাউলিয়া বাজারে দুটি ট্রাক ভাংচুর করে ১৮ দলের কর্মীরা। এসময় আব্দুল আজিজ নামে এক চালক আহত হন।
কোতয়ালি থানার ওসি এমদাদুল হক বলেন, ভাংচুরের সময় বাবু ও মারুফ নামে স্থানীয় দুই বিএনপি কর্মী তার কাছ থেকে ৫৫ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়েছে বলে আজিজ জানিয়েছেন।
দ্বিতীয় দিনের মতো চাঁদপুরে রেললাইনে নাশকতা চালিয়েছে অবরোধকারীরা।
চাঁদপুরের পুলিশ সুপার মো. আমির জাফর জানান, বুধবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে শহরের মিশন রোডে চাঁদপুর-লাকসাম রেলপথে আগুন দেয় ছাত্রদল কর্মীরা। এ সময় তাদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।
এর আগে গভীর রাতে চাঁদপুরের শাহরাস্তিতে রেললাইনের ক্লিপ খুলে লাইনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয় অবরোধকারীরা। ভোরে সেখানে লাইন মেরামত কাজ শেষ হয়।
অবরোধে নাশকতায় জড়িত অভিযোগে ১২ জনকে আটক করা হয়েছে বলে পুলিশ সুপার জানিয়েছেন।

শেয়ার