যশোরে অবরোধের নামে রেল ও রাজপথে আগুন, গাড়ি ভাংচুর

jessore
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ অবরোধের নামে যশোরে ১৮ দল রেল ও রাজপথে আগুন এবং গাড়ি ভাংচুরসহ নানা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে করেছে। এছাড়া গাড়ি ভাংচুরের পর ইজিবাই ও ট্রাক চালকদের কাছে থাকা টাকা ছিনিয়ে নেয়ায় মতো ঘটনা ঘটিয়েছে অবরোধকারীরা। ইজিবাইক ভাংচুরের সময় শহরতলীর ঝুমঝুমপুর এলাকা থেকে বিজিব’র সদস্যরা বিল্লাল হোসেন নামে একজনকে হাতেনামে আটক করেছে। এঘটনায় কোতোয়ালি থানায় মামলা হয়েছে। অপরদিকে, বিকালে জেলা ছাত্রদল শহরে বিক্ষোভ মিছিল করে ইজিবাইক, ব্যাংক ও আবাসিক হোটেল ভাংচুর করেছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, মঙ্গলবার সকালে রূপদিয়ায় রেললাইন অবরোধ করে আগুন দেয় ১৮ দলের নেতাকর্মীরা। আগুন ও অবরোধের কারণে সেখানে আটকা পড়ে ঢাকাগামী চিত্রা এক্সপ্রেস ট্রেন। একইসাথে সিঙ্গিয়া স্টেশনটি বন্ধ করে দেয় অবরোধকারীরা।
যশোর রেলওয়ে জংশনের সহকারী স্টেশন মাস্টার সাইদুজ্জামান জানান, রূপদিয়া বাজারের পাশে একটি ক্রসিং পয়েন্টের কাছে রেললাইনে আগুন দেয়ায় সেখানে চিত্রা এক্সপ্রেস ট্রেনটি আটকা পড়ে। খুলনা থেকে ছেড়ে আসা এ ট্রেনটি ৯টা ৪০মিনিটে ওই স্থানে এসে পৌঁছায়। পরে সাড়ে ১০টার দিকে পুলিশ ওই স্থানে গিয়ে অবরোধ তুলে দিলে ট্রেনটি ছেড়ে যায়। এর আগে সকাল ৮টা ১০মিনিটে সিঙ্গিয়ায় অবরোধে আটকা পড়ে খুলনা থেকে ছেড়ে আসা বেনাপোলগামী কমিউটার ট্রেনটি। ২০মিনিট আটকে থাকার পর সেটি ছেড়ে যেতে সাহায্য করে পুলিশ। পরে অবরোধকারীরা সকাল সোয়া ১০টার দিকে সিঙ্গিয়া স্টেশনে হানা দিয়ে স্টেশনটি বন্ধ করে দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে।
এছাড়া ভোর থেকেই অবরোধসমর্থকরা যশোর-খুলনা মহাসড়কের রাজারহাটে অবস্থান নিয়ে ৫-৬টি ট্রাক ভাংচুর করে। হামলার শিকার ট্রাক চালক যশোর সদর উপজেলার চাউলিয়া গ্রামের আব্দুল আজিজ জানান, তার গাড়ি ভাংচুরের পর কাছে থাকা ৫০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়ে গেছে অবরোধকারীরা। অপর এক ট্রাক চালক জানিয়েছেন, তার কাছ থেকে ছিনতাই হয়েছে ৩ হাজার টাকা।
এছাড়াও যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের পুলেরহাট, নতুনহাট, যশোর-মাগুরা মহাসড়কের হাশিমপুর, লেবুতলা, খাজুরাসহ বিভিন্ন স্থানে অবরোধ করে ১৮ দল কর্মীরা। এসব স্থানে আরও ৩-৪টি গাড়ি ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। এরমধ্যে যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের নতুনহাট থেকে ঝিকরগাছা পর্যন্ত বিভিন্ন স্থানে রাস্তার গাছ কেটে সড়ক অবরোধ করে জামায়াত বিএনপির ক্যাডাররা। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ঝুমঝুমপুর বিজিবি হেডকোয়ার্টারের সামনে অবরোধে বালিয়াডাঙ্গার আরিফুজ্জামানের ছেলে সোহানুর রহমানের ইজিবাইক ভাংচুরের অভিযোগে সদর উপজেলার কাজীপুর গ্রামের টিপু সুলতানের ছেলে বিল্লাল (২২) নামে একজনকে আটক করা হয়েছে। এঘটনায় বিল্লালসহ ৩ জনের নামে থানায় মামলা হয়েছে। মামলার অপর আসামিরা হল বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের মনসুরের ছেলে মেহেদী হাসান ও একই এলাকার আজিজুল ইসলাম। অন্যদিকে বিকালে জেলা ছাত্রদল শহরে বিক্ষোভ মিছিলকালে আল আরাফা ইসলামী ব্যাংক, আরএস টাওয়ারে ইট পাটকেল ছুঁড়ে ভাংচুর করেছে। এসময় ইজিবাইক ভাংচুর করা হয়েছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন। এদিকে, তফসিল ঘোষণার সাথে সাথেই গোটা যশোরকে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেয়া হয়। সোমবার রাত থেকে মঙ্গলবার অবধি শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশ মোতায়েনের পাশাপাশি র‌্যাব, পুলিশের টহল অব্যাহত ছিল। সহকারী পুলিশ সুপার (সদর) রেশমা শারমিন জানিয়েছেন, যেকোনো ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে যাবতীয় প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। র‌্যাব, পুলিশের পাশাপাশি রাজপথে ভ্রাম্যমাণ আদালতও রয়েছে।

শেয়ার