৪৮ ঘণ্টার মধ্যে পোস্টার-বিলবোর্ড সরাতে ইসির চিঠি

Eclogo
বাংলানিউজ ॥
আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে প্রার্থীদের আগাম প্রচারণামূলক সব ধরনের পোস্টার-বিলবোর্ড ও অন্যান্য প্রচারসামগ্রী অপসারণের নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।
মঙ্গলবার মেট্রোপলিটন পুলিশ কর্মকর্তার কাছে ইসির এ সংক্রান্ত নির্দেশনা পাঠানো হয়।
ইসির উপ-সচিব মিহির সারওয়ার মোর্শেদ বাংলানিউজকে এ খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
এর আগে দুপুরে নির্বাচন কমিশনার ব্রি. জে. (অব.) জাবেদ আলী সাংবাদিকদের বলেন, সব ধরনের প্রচারণা, বিলবোর্ড, পোস্টার অপসারণে চিঠি দিচ্ছে নির্বাচন কমিশন।
নির্বাচন ব্যবস্থাপনা ও সমন্বয় শাখা জানায়, নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা অনুযায়ী এ সংক্রান্ত বিশেষ নির্দেশ রিটার্নিং কর্মকর্তা, পুলিশ প্রশাসনসহ নির্বাচন কর্মকর্তাদের কাছে মঙ্গলবারই পাঠানো হয়েছে।
দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ৫ জানুয়ারি ভোট। এর আগে ২ ডিসেম্বর পর্যন্ত মনোনয়ন দাখিল, ৫ ও ৬ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র বাছাই এবং ১৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রত্যাহারের সময় রয়েছে। রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে মঙ্গলবার মনোনয়নপত্র বিতরণ শুরু হয়েছে।
উল্লেখ্য, নির্বাচন সামনে রেখে কয়েক মাস ধরে সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের প্রচারণা ও ভোট চেয়ে পোস্টার, বিলবোর্ডে সারাদেশ ছেয়ে গেছে। প্রথমে বিভিন্ন বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের ভাড়া করা বিলবোর্ড দখলে নেওয়ার মধ্য দিয়ে এ প্রচারণা চালানোর পর ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়ে ক্ষমতাসীনরা।
পরে বিলবোর্ড ভাড়া নিয়ে এক বিএনপিনেতার প্রাচারণা সংস্থা আপন কমিউনিকেশন্স-এর মাধ্যমে এসব প্রাচরণা চালানো হয়। তবে বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে এ খরচ তোলে আপন কমিউনিকেশন।
এদিকে বিরোধীদলের প্রার্থীদেরও রয়েছে নানা ধরনের আগাম কর্মসূচি ও সভা-সমাবেশ সামনে রেখে পোস্টার ও বিলবোর্ড। যত্রতত্র রয়েছে বিভিন্ন দিবসকে ঘিরে প্রচারণামূলক ব্যক্তিগত পোস্টার-বিলবোর্ডও। যত্রতত্র দেওয়াল লিখনও রয়েছে সর্বত্র।
ইসি কর্মকর্তারা জানান, তফসিল ঘোষণার পর থেকেই আচরণবিধি কার্যকর করার সময় শুরু হয়ে গেছে। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার শেষে প্রতীক বরাদ্দ পেয়ে দলীয় ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা প্রচারণায় নামতে পারবেন। প্রচারণার নির্ধারিত সময়ে বিধি মেনেই তা করতে হবে।
ইসি সচিবালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে প্রার্থী ও প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণামূলক এসব সামগ্রী অপসারণ করতে হবে। নিজ উদ্যোগে সম্ভাব্য প্রার্থীরা তা সরিয়ে ফেলবেন অথবা সংশ্লিষ্ট পুলিশ প্রশাসন এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেবে।

শেয়ার