তফসিল ঘোষণার পর নাশকতার চেষ্টা ॥ যশোরে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর আগাম প্রস্তুতি ব্যর্থ করে দেয় অপতৎরতা

BGB
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ প্রধান নির্বাচন কমিশনার দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর সন্ধ্যা রাতে যশোর শহর ও শহরতলীর বিভিন্ন এলাকায় নাশকতার চেষ্টা করে ১৮ দলীয় জোটের কর্মী-সমর্থকরা। তারা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও দোকান-পাট বন্ধ করার জন্য চাপ দেয়। এ সময় মানুষের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। তবে নাশকতা ঠেকাতে আগে থেকেই আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ব্যাপক প্রস্তুতি ছিল। গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে তারা ছিল সতর্ক অবস্থানে। তফসিল ঘোষণার পর বিজিবি র‌্যাব ও পুলিশের টহলও বাড়িয়ে দেয়া হয়। যেকারণে কোন রকমের নাশকতার ঘটনা ঘটেনি।
গতকাল রাত সাড়ে ৭টায় জাতীর উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিব উদ্দিন আহমেদ দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর শহর ও শহরতলীর বিভিন্ন স্থানে নাশকতা সৃষ্টির লক্ষে মাঠে নামে ১৮ দলীয় জোটের সন্ত্রাসী কর্মী সমর্থরা। তারা তফশীল ঘোষণার প্রতিবাদে শহরে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। একই সময় আনন্দ মিছিল বের করে আওয়ামীলীগ ও ছাত্রলীগ। শহরতলীর রূপদিয়া ও বসুন্দিয়ায় যশোর-খুলনা মহাসড়ক অবরোধ করে ১৮ দলীয় জোটের সমর্থকরা। এসব ঘটনায় মানুষ আতঙ্কিত হয়ে ওঠে। তবে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী যেকোন নাশকতা ঠেকাতে আগে থেকে প্রস্তুত থাকায় ১৮ দলীয় জোটের সমর্থকরা সুবিধা করতে পারেনি। সন্ধ্যার পর আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর টহল জোরদার করা হয়। শহরে খুলনা বাসস্ট্যান্ড, বাস টার্মিনাল, দড়াটানা, মুড়লী, পালবাড়ির মোড়, খাজুরা বাসস্ট্যান্ডসহ গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে পুলিশ সতর্ক অবস্থান নেয়। টহলে পুলিশের পাশাপাশি অংশ নেয় র‌্যাব ও বিজিবি। তা সত্ত্বেও মানুষের মধ্যে বেশ আতঙ্ক ছিল। নিরাপদে বাড়ি ফিরতে অনেকে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সন্ধ্যা রাতেই বন্ধ করে দেয়। যশোরের সহকারী পুলিশ সুপার (সদর দপ্তর) রেশমা শারমিন জানান, নাশকতা ঠেকাতে ব্যাপক প্রস্তুতি রয়েছে। সর্ব শক্তি দিয়ে যেকোন অপতৎপরতা প্রতিহত করা হবে।

শেয়ার